তিস্তার রাক্ষুসী রূপে বিপর্যস্ত জনজীবন

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: উত্তরাঞ্চলে নদ-নদীর পানি কিছুটা কমলেও, এখনও বইছে বিপদসীমার উপরে। গাইবান্ধা, নাটোর, নওগাঁয় বন্যার পানিতে প্লাবিত গ্রামের পর গ্রাম। বিপর্যস্ত খেটে খাওয়া মানুষের জীবনযাত্রা। লালমনিরহাট, কুড়িগ্রামে ভাঙনে বসতভিটা হারিয়ে দিশেহারা নদীপাড়ের মানুষ। আর নতুন করে পানি বাড়ছে পদ্মায়।

অসময়ে হঠাৎ বন্যায় জেরবার অবস্থা উত্তরের জনপদে। বন্যার পানি কমতে শুরু করলেও এখনও বিপদসীমার উপরে নদ-নদীর পানি।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র বলছে, দেশে ৫০টি নদ-নদীর পানি বেড়েছে আর কমছে ৪৯টির।

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে করতোয়া নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে গোবিন্দগঞ্জ-দিনাজপুর আঞ্চলিক সড়কে পানি উঠে বন্ধ যোগাযোগ ব্যবস্থা। ঘাঘট ও করতোয়া নদীর পানি উপচে ছয়টি উপজেলা তলিয়েছে। পানিবন্দি ৬০ হাজার মানুষ। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা।

আত্রাই নদীর প্লাবনে নাটোরের সিংড়া, নলডাঙ্গা ও গুরুদাশপুর উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের মানুষ এখনও পানিবন্দি। ভেঙে গেছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। দুর্ভোগে খেটে খাওয়া মানুষ।

নওগাঁয় প্লাবিত অর্ধশত গ্রাম। তলিয়ে গেছে ১০ হাজার হেক্টর জমির আমন ধান।

সিরাজগঞ্জে পাহাড়ী ঢল আর অতিবৃষ্টিতে আবারও বাড়তে শুরু করেছে যমুনার পানি। প্রবাহিত হচ্ছে ১২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে। আবারও প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল।

লালমনিরহাট, কুড়িগ্রামে নদী ভাঙনে বিপর্যস্ত জনজীবন। নতুন করে বাড়ছে পদ্মার পানি। রাজবাড়ীতে পদ্মার পানি বাড়ায় নতুন করে দেখা দিয়েছে ভাঙন।