বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রাজধানীর মগবাজারে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা নাশকতা কিনা তা তদন্ত করছে পুলিশ। বিস্ফোরণের সম্ভাব্য কারণ অনুসন্ধানে ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ফরেনসিক ও ক্রাইম সিন ইউনিট।

অন্যদিকে ফায়ার সার্ভিস থেকে গঠিত তদন্ত কমিটি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছেন। বিস্ফোরণের কারণ অনুসন্ধানে আলামতও সংগ্রহ করছেন।

আজ সোমবার (২৮ জুন) দুপুর ১২টায় ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে আসা ক্রাইম সিন ইউনিটের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, বিস্ফোরণটা মারাত্মক ছিল। প্রাথমিকভাবে নানা কারণ উঠে এলেও বিস্ফোরণের সঠিক কারণ এখনো নিশ্চিত না। বিস্ফোরণের আলামত সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেগুলো ফরেনসিক পরীক্ষা করে দেখা হবে। আমাদের চৌকষ দল ক্ষতিগ্রস্ত ভবন ও আশপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা এরিয়া কর্ডন করে আলামত সংগ্রহ করছেন।

ঘটনাস্থলে কথা হয় ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদফতর কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্য সহকারী পরিচালক (ঢাকা) ছালেহ উদ্দিন আহমেদের সঙ্গে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি জমে থাকা গ্যাসে ভবনটি গ্যাস চেম্বারে পরিণত হয়েছিল। কোনো স্পার্ক হয়ে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটতে পারে। আমাদের তদন্ত দল আলামত সংগ্রহ করছে। পারিপাশ্বিক অবস্থা ও সংগৃহীত আলামত বিশ্লেষণ শেষে এব্যাপারে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

রোববারের (২৮ জুন) ওই ভয়াবহ বিস্ফোরণে নারী ও শিশুসহ ৭ জন মারা গেছে। দগ্ধ হয়ে ১৭ জন শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

ফায়ার সার্ভিসের সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্য থেকে জানা যায়, মোট ৬৬ জনের হাসপাতালে ভর্তির তথ্য পাওয়ার গেছে। এর বাইরে অর্ধশতাধিক আহত ব্যক্তি প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

Previous articleমুলাদীতে সড়ক দুর্ঘটনায় একজনের মৃত্যু
Next articleকয়লাভিত্তিক ১০টি তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।