জয়নাল আবেদীন: তিস্তাসহ অভিন্ন সকল নদীর পানির সম বন্টন ও টেকসই সমাধানে যেকোন সময় আলোচনায় বসতে ভারত সরকার প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রী বিক্রম কুমার দোরাই স্বামী।

মঙ্গলবার সকালে রংপুর সিটি করপোরেশনকে ভারতের দেয়া একটি এম্বুলেন্স উপহার দিতে এসে এ কথা বলেন তিনি।এসময় বর্ডার কিলিং এর বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে দোরাই স্বামী বলেন, অবৈধ কর্মকান্ডের কারনেই বর্ডার কিলিং এর মতো ঘটনা ঘটছে। তাই বর্ডার এলাকায় উভয় দেশের নাগরিককেই অবৈধ কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকার আহবান জানান তিনি। এবং এ বিষয়ে উভয় দেশের সরকারের আলোচনার কথাও জানান ভারতীয় হাই কমিশনার। এছাড়াও নারীদের শিক্ষা, স্বাস্থ্যখাতসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বন্ধু রাষ্ট্র হিসেবে ভারতের সহযোগীতা অব্যাহত থাকার কথা বলেন বিক্রম কুমার দোরাই স্বামী এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন রংপুর সিটি কর্পোরেশন মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীন ছাড়াও অন্যান্য কাউন্সিলরগণ।এদিকে ব্যবসায়িদের সাথে মত বিনিময় সভায় ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বলেছেন পারস্পারিক সমঝোতার মাধ্যমে আগামীতে বাংলাদেশে ভারতের বিনিয়োগ ও বাণিজ্য বহুগুণে বাড়বে ।

মত বিনিময় সভার শুরুতেই বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক ব্যবসা-বাণিজ্যের বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা নিয়ে কী নোট পেপার উপস্থাপন করেন এফবিসিসিআই এর সিনিয়র সহ-সভাপতি ও রংপুর চেম্বারের সাবেক সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু।বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক ব্যবসা-বাণিজ্যের বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা নিয়ে উন্মুক্ত আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করেন দিনাজপুর চেম্বারের সভাপতি রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী শামীম, বুড়িমারী স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আবু সায়েদুজ্জামান, সোনাহাট স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক।ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশের প্রধান রপ্তানি পণ্যগুলোর ওপর রাজ্য সরকারের আরোপিত শুল্ক ও অশুল্ক বাধার কারণে ভারতে কাংখিত পরিমাণে রপ্তানি কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না বলে মতামত ব্যক্ত করেন। এছাড়া ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ পণ্য খালাসের সুবিধার্থে ভারতীয় কাস্টমস কার্যালয় সকাল সাতটা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত চালু রাখা এবং সহায়ক ব্যবসায়ীক পরিবেশ সৃষ্টির জন্য ভারতীয় হাই কমিশনারকে অনুরোধ জানান। বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বলেন, ভারত-বাংলাদেশ কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছে। এ দেশ হচ্ছে ভারতের প্রথম সারির ব্যবসায়িক অংশীদার। আমাদের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন সহযোগীও বাংলাদেশ। তিনি বলেন, মোংলা ও মিরসরাইয়ে ভারতের দুটো অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে। এসব অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভারতের বিভিন্ন খাতের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগে আগ্রহ দেখাচ্ছেন। বিশেষ করে অটোমোবাইলের যন্ত্রাংশ উৎপাদন, হালকা প্রকৌশল পণ্য উৎপাদন, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, কৃষি যন্ত্রপাতি উৎপাদনে আগ্রহ দেখাচ্ছেন অনেকে। বাণিজ্য ঘাটতির বিষয়ে তিনি বলেন, পণ্য বৈচিত্রকরণ হলে ভারতেও রফতানি বাড়বে এবং ঘাটতি অনেক কমে যাবে। তাই বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ আরও বাড়াতে চায় ভারত সরকার। বাংলাদেশের অবকাঠামো ও যোগাযোগে উন্নতি হচ্ছে। কিছু চ্যালেঞ্জ থাকলেও আগামীতে বাংলাদেশে ভারতের বিনিয়োগ ও বাণিজ্য বহুগুণে বাড়বে বলে মতামত ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্বের বন্ধনে আবদ্ধ। দীর্ঘদিনের অনেক অমীমাংসিত সমস্যা সমাধান হয়েছে, পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমে বাকিগুলোরও সমাধান হবে।

Previous articleরায়পুরে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে মদ্রাসার সীমানা প্রাচীর ভাংচুর
Next articleকোম্পানীগঞ্জে বেপরোয়া ট্রাকের ধাক্কায় সাইকেল আরোহী শিশুর মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।