সদরুল আইন: বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে এমন অনেক জেলা রয়েছে যেখান থেকে আওয়ামী লীগের শাসনামলে কোনো সাংসদই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিতে পারেননি।

গাইবান্ধা :

এক সময় জাতীয় পার্টির শক্ত ঘাঁটি ছিল গাইবান্ধা। এবার এই জেলায় ৩টি আসন আসন পেয়েছে নৌকার প্রার্থীরা। তবে এদের কেউই মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি।

শুধু এবার নয়, আওয়ামী লীগের কোনো মেয়াদেই এই আসন থেকে কোনো সাংসদ মন্ত্রিত্বের স্বাদ পাননি।

জয়পুরহাট :

বিএনপি-জামায়াত অধ্যুষিত এলাকা জয়পুরহাট। আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে এই জেলা থেকে কেউই মন্ত্রী হননি।

বগুড়া :

বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের এলাকা বগুড়া বিএনপি’র শক্ত ঘাঁটি। আওয়ামী লীগ সরকারের কোন মেয়াদেই মন্ত্রী পরিষদে এই জেলার কোনো সাংসদ স্থান পাননি।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ :

বিএনপি-জামায়াত অধ্যুষিত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ। আওয়ামী লীগের সরকারে এই জেলা থেকে কখনোই কোনো জনপ্রতিনিধি মন্ত্রী হননি।

ঝিনাইদহ :

ঝিনাইদহ এক সময়ের বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে পরিচিত।বর্তমানে অা’লীগের শক্ত ঘাঁটি। আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে, এই জেলা থেকে কেউই পূর্ণ মন্ত্রিত্বের স্বাদ পাননি।

চুয়াডাঙ্গা :

শুধু আওয়ামী শাসনামলেই নয়, কোনো সরকারের সময়েই এই জেলা থেকে কোন জনপ্রতিনিধি মন্ত্রীর পদে বসেননি।

নড়াইল :

আওয়ামী শাসনামল তো বটেই স্বাধীনতা পরবর্তী সময় নড়াইল থেকে কখনোই কেউ মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি।

এবার নড়াইল-২ আসনে নব নির্বাচিত এমপি মাশরাফি বিন মর্তুজা মন্ত্রিসভায় জায়গা পেতে যাচ্ছেন বলে জোর গুঞ্জন শোনা গেলেও শেষ পর্যন্ত তা আর সত্যি হয়নি।

বরগুনা:

স্বাধীনতার ৪৭ বছরেও বরগুনার কোনো সাংসদ মন্ত্রিপরিষদে স্থান পাননি।

বরগুনা-১ আসনের পাঁচবারের সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুকে মন্ত্রিপরিষদে অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়েছিল এলাকাবাসী। কিন্তু সেই দাবি বাস্তবায়িত হয়নি।

ফেনী :

বেগম খালেদা জিয়ার এলাকা ফেনীতেও আওয়ামী লীগ শাসনামলে কেউ মন্ত্রিত্বের স্বাদ পাননি।

কক্সবাজার :

আওয়ামী শাসনামলে কক্সবাজার থেকে কখনোই কোনো সাংসদ মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি।

২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এসে সালাহ উদ্দীন আহমদকে প্রতিমন্ত্রীর পদে বসিয়েছিল। এর বাইরে কখনোই কোনো সাংসদ এই জেলা থেকে পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব পাননি।