শ্রীপুরে আ.লীগের কাউন্সিল এমপি সবুজের ৭ হুশিয়ারী

সদরুল আইন: গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় আ.লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনসমুহের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে। বর্ধিত সভা থেকে এই উপজেলার ৮ টি ইউনিয়নের কাউন্সিলের দিন তারিখ নির্ধারণ করে জনসমুখে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।পৌরসভার ৯ টি ওয়ার্ড এবং থানা ও পৌরসভার কাউন্সিলের দিন ক্ষণ নির্ধারন করে এখনো ঘোষণা দেওয়া হয়নি।

এই ঘোষণার ফলে প্রতিটি ইউনিয়নে এখন দলটির নেতা কর্মিদের মধ্যে উৎসব আমেজ বিরাজ করছে।সরব হয়ে উঠেছে চা পান বিড়ি সিগারেটের দোকানগুলো।কদর বেড়ে গেছে নেতা কর্মিদেরও।হাট বাজার রাস্তা ঘাটে চলছে সরোব আলোচনা।কে হতে পারেন সভাপতি সাধারন সম্পাদক। অন্যান্য পদে কে কে অাসতে পারেন তা নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে চলছে মুখর আলোচনা, সমালোচনা।

ইতিমধ্যেই সম্ভাব্য প্রার্থিরা প্রকাশ্যে নেতা কর্মিদের নিজেদের পক্ষে টানতে লবিং শুরু করে দিয়েছেন। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থিদের দৌড় ঝাপ চলছে।কোন কোন প্রার্থি বড় নেতাদের দ্বারস্থ হচ্ছেন, তদবির করছেন অতি সংগোপনে।

পদ পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি বা ইঙ্গিত পাওয়ায় কোন কোন নেতা এসি, ইলিশ মাছ,মিষ্টি ও ফুলের তোড়া পেয়েছেন বলেও আলোচনা সমালোচনা চলছে।

কাউন্সিল মানেই শীর্ষ নেতাদের কদর বেড়ে যাওয়া।পকেট ভারি করার সুযোগ আসা। অতিতের খরচ কিছুটা পুষিয়ে নেওয়া। অতিতে এই উপজেলায় কোন কাউন্সিল গণতান্ত্রিক ও গঠনতন্ত্র অনুসারে হয়নি।

ফলে সে সব কমিটি ছিল সাবেক এমপির একান্ত অনুগত পছন্দের লোক দিয়ে গঠিত পকেট এবং প্যাকেট কমিটি।বিপুল অর্থের বিনিময়ে সে সময় পদ কিনে নিতে হত বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

কিন্তু একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রার্থি পরিবর্তনের মাধ্যমে গাজীপুর-৩ আসনে শুরু হয়েছে নতুন ধারার রাজনীতি।এই আসনের বর্তমান এমপি জেলা অা.লীগের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ সততা,আদর্শ, দলের শৃঙ্খলা, আইন, গঠনতন্ত্র এবং শেখ হাসিনার নির্দেশ ও দিক নির্দেশনার প্রতি হিমালয়ের মত অবিচল।নীতি অাদর্শ ও দলের গঠনতন্ত্রের বাইরে এক চুলও ছাড় দেওয়ার পাত্র তিনি নন।

ফলে সদ্য অনুষ্ঠিত শ্রীপুর আ.লীগ অফিসের বর্ধিত সভায় তিনি নেতা কর্মিদেদের উদ্দেশ্যে সকল অনিয়মের বিরুদ্ধে কঠোর হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন।

একান্ত আলোচনায় গাজীপুর-৩ আসনের নন্দিত প্রিয় মুখ ইকবাল হোসেন সবুজ এমপি এ প্রতিবেদককে দৃড় কন্ঠে বলেছেন, ‘কোন অন্যায় অনিয়ম সহ্য করা হবে না।মুখ দেখে,বড় বড় মিছিল দেখে, পোস্টার ব্যানার ফেস্টুন দেখে কাউকে নেতা বানানো হবে না।’

‘যে সত্যিকার অর্থেই যোগ্য,দল ও শেখ হাসিনার প্রতি যার অবিচল আস্থা আছে, পারিবারিকভাবে যারা আ.লীগের কর্মি সমর্থক,রাজপথে যাদের ত্যাগ আছে, জনগন যাদেরকে চায় ও ভালবাসে কেবল তারাই কমিটিতে অাসতে পারবে।’

তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, যারা রাজাকার পরিবারের সন্তান, যাদের পরিবার ৭১ এ মানবতার বিপক্ষে ছিল, তারা কেউ আ.লীগের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকতে পারবে না।হঠাৎ করে দলে অাসা দলছুট কোন নেতা আ.লীগের কমিটিতে থাকতে পারবে না।’

সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজ বলেন, কোন চাঁদাবাজ, ভূমিদস্যূ, খুঁটা বাহিনী,মাদক ব্যবসায়ী বা মাদকসেবীর জায়গা হবে না গাজীপুরের আ.লীগের কমিটিতে।

সম্পূর্ণ পরিছন্ন নির্ভেজাল ত্যাগী জনগ্রহনযোগ্য নেতা কর্মিদের সমন্বয়ে একটি মানবিক কমিটি উপহার দেওয়া হবে জনগনকে।জনগনের যে প্রত্যাশাগুলো আছে তা যারা বাস্তবায়ন করতে পারবে তাদের সমন্বয়ে নতুন কমিটি উপহার দেওয়া হবে শ্রীপুরবাসিকে তথা গাজীপুরকে।’

তবে এক ব্যক্তি দুই পদে না থাকার যে জনদাবি উঠেছে দলটির অভ্যন্তর থেকে, সে সম্পর্কে শীর্ষ নেতাদের কাছ থেকে এখন পর্যন্ত স্পষ্ট কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এদিকে বর্ধিত সভা ও এ প্রতিবেদকের সাথে একান্ত অালাপচারিতায় গাজীপুরের স্পন্দিত ফুলেল হৃদয় ইকবাল হোসেন সবুজ এমপি দৃড়তার সাথে যা বলেন তা হলো :

১. টাকার বিনিময়ে কেউ পদ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে
তাকে প্রাথমিক সদস্য পদও দেওয়া হবে না।

২. অবৈধ অর্থ লেনদেন বা সুবিধা নেওয়ার অভিযোগ
যদি কোন নেতার বিরুদ্ধে পাওয়া যায় তবে সে যত
বড় নেতাই হোক না কেন, তাকে সঙ্গে সঙ্গে দল
থেকে বহিষ্কার করা হবে।

৩. টাকা দিয়ে ভাড়া করে লোক এনে বড় মিছিল করে
কেউ দলিয় পদ নিতে পারবে না।

৪. ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার লাগিয়ে কেউ নেতা হতে
না।

৫. গ্রুপিং করে কোন নেতা নিজেদের পছন্দের
লোকদের পদ পাইয়ে দিতে পারবে না।

৬. প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে আমি ( ইকবাল হোসেন
সবুজ এমপি) নিজে থেকে নিজ হাতে গণতান্ত্রিক ও
দলিয় নির্দেশনা মেনে,গঠনতন্ত্র অনুসারে,প্রধানমন্ত্রী
শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুসরণ করে যোগ্য
লোকের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করে দেব।

৭. থানা ও পৌর কমিটি গঠনের পূর্বে কাউন্সিলের
সময় ও তারিখ কেন্দ্রিয় নেতাদের সাথে অালোচনা
করে নির্ধারন করা হবে এবং সেই কাউন্সিলে
কেন্দ্রিয় নেতাদের উপস্থিতি নিশ্চিত করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিস্ময়কর অাবিষ্কার, উঠান বৈঠকের অনন্য রুপকার,গাজীপুরের রাখাল রাজা ইকবাল হোসেন সবুজ এমপি আসন্ন কাউন্সিলের মাধ্যমে আ.লীগ ও সহযোগী সংগঠনসমুহের যে কমিটি করতে যাচ্ছেন তা দলিয় গঠনতন্ত্র মেনে,কেন্দ্রের নির্দেশনা মোতাবক হচ্ছে বলে প্রাপ্ত কেন্দ্রীয় চিঠির নির্দেশনা থেকে জানা গেছে।

উক্ত কেন্দ্রিয় চিঠিতে ১০ ই ডিসেম্বরের মধ্যে জেলা থানা পৌরসভার সকল ইউনিটের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন করার নির্দেশনা রয়েছে।