বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে অস্ত্রের ঝনঝনানি চলছে বলে দাবি করেছেন উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার মেয়র প্রার্থী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা।

শনিবার (৯ জানুয়ারি) বসুরহাট পৌরসভার উপজেলা পরিষদের সামনে নির্বাচনী পথসভায় এসব কথা বলেন তিনি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত, ইসকান্দার বাবুল, আজম পাশা চৌধুরী রুমেল।

মির্জা কাদের বলেন, কোম্পানীগঞ্জে আজ অস্ত্রের ঝনঝনানি চলছে। কবিরহাট ও ফেনীতে এক বাড়িতে নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্র করছে। গত দুইদিন আগে চট্টগ্রাম থেকে অবৈধ অস্ত্র এনেছে, আমি প্রশাসনকে জানিয়েছি। নোয়াখালীর প্রশাসন মাসওয়ারা খায়।

জেলা প্রশাসককে অভিযুক্ত করে তিনি বলেন, একজন এমপির নামযুক্ত মাস্ক কীভাবে আপনি পরেন। আপনিতো নিরপেক্ষ নন। ওবায়দুল কাদের সাহেব আমার ওপর রাগ করবে, তাতে আমার কিছু আসে যায় না। আমি আর কত সময় ধৈর্য ধরব।

আরও পড়ুন: ওবায়দুল কাদেরের রাগে আমার কিছু যায় আসে না: মির্জা কাদের

তিনি বলেন, আমি নোয়াখালীর এসপিকে সব বলেছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। অস্ত্রধারীরা এখনও মহড়া দিচ্ছে। বিগত সময় যেসব অস্ত্র জামায়াত-বিএনপি ব্যবহার করেছে তা এখনও উদ্ধার করা হয়নি। আমি অস্ত্রধারীদের এলাকা থেকে বিতাড়িত করার অনুরোধ করছি। আমাদের দলের যারা অস্ত্র এনেছে তাদের কথা আমি ডিসি-এসপিকে বলেছি। যদি কোম্পানীগঞ্জের নির্বাচন নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র হয়, রং লাগানো, কোনো মায়ের বুক খালি হয় এর সব দায় ডিসি এবং এসপিকে নিতে হবে। তাহলে ডিসি হবেন এক নাম্বার আসামি আর এসপি হবেন দুই নাম্বার আসামি। তাছাড়া ফেনী নোয়াখালীর ১১ জনের নামের তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছি। আমার কিছু হলে তারা দায়ী থাকবেন।

তিনি আরও বলেন, নোয়াখালীর নেতাদের কারা শেল্টার দেয়? অথচ ঢাকা থেকে নো বললে তারা আর নেই। কিন্তু একজন নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানকে প্রকাশ্যে হত্যা করে পরে পেট্রল দিয়ে তার গাড়িসহ পুড়িয়ে ফেলেছে। কিন্তু তাদের পরিবার আজও বিচার পায়নি। আজ ওই পরিবার যে ঘর থেকে বের হয়ে বিচার চাইবে তারও সুযোগ নেই। তাহলে কি ওই পরিবার বিচার পাবে না? প্রতিবাদ করায় আমাকে পাগল উন্মাদ বলে। এক নেতা আমাকে বলে আমার নাকি দায়িত্বশীলতার যথেষ্ট অভাব রয়েছে। আমি প্রশ্ন করি আপনি দায়িত্বশীল ব্যক্তি, আপনার বাড়ি কুষ্টিয়া, আর সেই কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙেছে। আপনি এগুলো বন্ধ করুন। আমি কাউকে ভয় পাই না, কি করবেন বহিষ্কার করবেন, জেলে দিবেন মেরে ফেলবেন? আমি সাদা কে সাদা, আর কালো কে কালো বলব।

আব্দুল কাদের মির্জা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের উদ্দেশে বলেন, আমি সারা দেশের কথা বলি নাই, আপনাদের কথা বলি নাই, আমি নোয়াখালী-ফেনীর যে অপরাজনীতির বিরুদ্ধে কথা বলছি তা কেন আপনারা নিজেদের গায়ে নিচ্ছেন। আমি মনে করি শেখ হাসিনা অসহায়। শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আজ আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র হচ্ছে। দেশের মৌলবাদী অপশক্তি ও সাম্প্রদায়িক শক্তি ষড়যন্ত্র করছে। শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে। দলের ভেতরে চাটুকাররা রাত দিন ভুল তথ্য দেয়।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনাকে দেশ পরিচালনা করতে হয়। রাজনীতি দেখতে হয়, তার পক্ষে ফেনী নোয়াখালী কোম্পানীগঞ্জ দেখার সময় কই? এগুলো কার দায়িত্ব? আপনাদের কাজ কী? সবকাজ যদি শেখ হাসিনাকে করতে হয় দেশের মানুষের অন্য বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা ও বাসস্থান সব যদি শেখ হাসিনা করে তাহলে আপনারা কেন?

তিনি বলেন, আমি সবার কথা বলি না। মন্ত্রীদের মধ্যেও অনেক ভালো লোক রয়েছেন, সাংবাদিকদের মধ্যে ভালো লোক রয়েছেন কিন্তু অধিকাংশ আজ শেখ হাসিনাকে অসহযোগিতা করছেন। চোরা দুর্নীতিবাজদের যে বিচার হচ্ছে, তাতে দেশের মানুষ খুব খুশি। এর আগে কেউ এরকম বিচার করতে পারেনি। খালেদা জিয়াও পিন্টুর বিচার করতে পারেনি। শেখ হাসিনা সাহসী তাই তিনি বিচার করছেন, এটা সত্য আমি সত্য কথা বলব।

মির্জা কাদের বলেন, আমি আগে বলেছি দুর্নীতিবাজ প্রশাসনের যারা অপকর্মের সহযোগিতা করছে আজকে নেত্রীর কাছে আবেদন করব, দুর্নীতিবাজ রাজনৈতিক নেতাদের বিচার করুন। শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করা সম্ভব হয়নি। এ কথাগুলো বলার মাধ্যমে আমি তাকে জানাচ্ছি।

মির্জা কাদের আরও বলেন, ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে। ভোটের অধিকার এখনও পূর্ণাঙ্গ প্রতিষ্ঠিত হয়নি। আমি এ কথাগুলোই বলছি। বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচনের মাধ্যমে আমি জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে এ কাজ শুরু করতে চাই। জননেত্রী শেখ হাসিনা এক্ষেত্রে পরিবর্তন আনতে পারেন, তার সক্ষমতা ও যোগ্যতা রয়েছে। যা খালেদা জিয়া বা তারেক জিয়ার পক্ষে সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, যদি কাগজে লেখ নাম, সে নাম মুছে যাবে। পাথরে লেখ নাম, পাথর ক্ষয়ে যাবে। হৃদয়ে লেখ নাম, সে নাম রয়ে যাবে। আগামী ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত আমার নাম আপনাদের হৃদয়ে লিখে রাখবেন এবং আমাকে ভোট দেবেন।