ভালো কাজের স্বীকৃতি দেরীতে হলেও পাওয়া যায় : রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার

জয়নাল আবেদীন: রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোহা: আবদুল আলীম বিপিএম বলেছেন ভালো কাজের স্বীকৃতি দেরীতে হলেও পাওয়া যায় । যার দৃষ্টান্ত এবছর পুলিশ সপ্তাহে মিলেছে । রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সদস্যদের ভালো কাজের জন্য পুরস্কৃত করা হয়েছে ।বুধবার তিনি তার সম্মেলন কক্ষে মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় এসব কথা বলেন ।সভায় গত ডিসেম্বর মাসের অপরাধ নিয়ে পর্যালোচনা করা হয় এবং আগামী মাসে অপরাধ নিয়ন্ত্রনে মেট্রোপলিটন পুলিশের কার্যক্রমকে আরও গতিশীল ও স্বচ্ছ করার জন্য প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করেন তিনি ।সভায় বিভিন্ন বিষয়ের উপর আলোচনায় অংশ নেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আবু সুফিয়ান, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর দপ্তর ও প্রশাসন),মোঃ মহিদুল ইসলাম উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান । এসময় সকল অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার, সহকারী পুলিশ কমিশনার, সকল থানার অফিসার ইনচার্জ ও ফাড়ির ইনচার্জসহ অন্যান্য অফিসারবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ঢাকা রাজারবাগ, পুলিশ লাইন্স,অনুষ্ঠিত“পুলিশ সপ্তাহ-২০২০ রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ সদস্যদের মধ্যে থেকে ভালো কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ এসআই(নিঃ)/মোঃ মামুনুর রশীদ, তাজহাট থানা-কে পিপিএম-সেবা পদক এবং অতিরিক্ত উপ- পুলিশ কমিশনার (সিটিএসবি),মোছাঃ শামিমা পারভীন অতিরিক্ত উপ- পুলিশ কমিশনার (হেডকোয়ার্টার্স),আব্দুল্লাহ আল ফারুক অতিরিক্ত উপ- পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) মোঃ শহিদুল্লাহ কাওছার পিপিএম-সেবা, ও মাহিগঞ্জ থানা-গণকে এসআই(নিঃ)/মোঃ আল-আমিন, আইজিপি ব্যাজ প্রদান করা হয়। পুলিশ কমিশনার অনুষ্ঠানের শেষে উক্ত পুলিশ সদস্যদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায়“ডিসেম্বর-২০১৯”মাসে ভালো কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ হারাগাছ থানার এসআই জ্যোতিষ চন্দ্র রায় ও এএসআই অশিক ইকবালকে শ্রেষ্ঠ মোঃ রুহুল আমিনকে শ্রেষ্ঠ সার্জেন্ট হিসেবে এবং কোতয়ালী থানার মোঃ শহিদুল হক ওয়ারেন্ট তামিলকারী অফিসার হিসেবে পুরস্কৃত করেন। এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনের মাধ্যমে ভালো তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কোতয়ালী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রাজিফুজ্জামান বসুনিয়া,ইজার আলী এবং হারাগাছ থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মোতালেব হোসেনকে বিশেষ পুরস্কারে পুরস্কৃত করা হয় ।