সাহারুল হক সাচ্চু: আজ ১৩ ডিসেম্বর উল্লাপাড়া পাকহানাদার মুক্ত দিবস। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়
এদিন উল্লাপাড়ায় বিজয়ের উল্লাসে রাস্তায় নামে অসংখ্য মুক্তিকামী নারী পুরষ। মুক্তিযুদ্ধর শেষ পর্যায়
১১ নভেম্বর সিরাজগঞ্জের তাড়াশের নওগাঁর যুদ্ধে মুক্তিযােদ্ধাদের কাছে পাক বাহিনীর পরাজয়ের পর
উল্লাপাড়া থানা সদরের একটি বিদ্যালয়ে ক্যাম্প করে থাকা ঘাতক পাক সেনারা তাদের মনােবল হারিয়ে ফেলে।
এরা অনেকটাই নিস্ক্রিয় হয়ে পড়ে । একাত্তরের ১২ নভেম্বর মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও পলাশডাঙ্গা
যুব শিবিরের পরিচালক আব্দুল লতিফ মির্জার নেতৃত্বে বীর মুক্তিযােদ্ধাগন থানা সদরে পাক সেনাদের
ক্যাম্পে আক্রমনের জন্য রওনা হন। এ খবর পেয়ে এদিন মধ্য রাতে পাক সেনারা তাদের উল্লাপাড়া ক্যাম্পের
অস্ত্র গুদামে আগুন ধরিয়ে দিয়ে নগরবাড়ী-বগুড়া মহাসড়ক পথে ঢাকার দিকে পালিয়ে যায়। পরেরদিন ১৩
ডিসেম্বর উল্লাপাড়া পাক হানাদার মুক্ত হয়। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু শ্লােগানে অসংখ্য নারী পুরুষ নেমে
আসে রাস্তায়। উল্লাপাড়া মুক্তিযােদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার গাজী মােঃ খােরশেদ আলম উল্লাপাড়া থানা
চত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে এদিন সকালে স্বাধীন বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত জাতীয় পতাকা উত্তােলন করেন।
এরপর থানা শহরে মুক্তিযােদ্ধা জনতার বিজয় শােভাযাত্রা বের করা হয়।
উল্লাপাড়া পাক হানাদার মুক্ত দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার পৌর শহরে মুক্তিযােদ্ধা জনতার সম্মিলিত
র‌্যালী, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস শুনিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানা যায়।