উল্লাপাড়ায় লাল পতাকা দেখিয়ে থামানো হয় ট্রেন, ডেড ষ্টপ স্লিপ নিয়ে পার হয় ব্রীজ

সাহারুল হক সাচ্চু: ঢাকা-ঈশ্বরদী রেলপথের উল্লাপাড়ায় দু’টি ঝুকিপুর্ণ রেল ব্রীজ হয়ে চলাচল করছে ট্রেনগুলো। ব্রীজ দু’টি হলো- এ ২৯ কামারপাড়া ও এ ২৬ বংকিরাট ব্রীজ। ঢাকার সাথে ঈশ্বরদী হয়ে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের রেলপথের একমাত্র যোগাযোগ রয়েছে। এর রেলপথে চব্বিশ ঘন্টায় কোলকাতাসহ বিভিন্ন গন্তব্যের ১২টি আন্তঃনগর ট্রেনসহ বেশ ক’টি মালবাহী ট্রেন চলাচল আসা যাওয়া করে। গত মাস পাচেক আগে ব্রীজ দু’টির ক্ষতি দেখা দেয়। এর মধ্যে বংকিরাট ব্রীজের নয়টি পিলারের মধ্যে তিনটি পিলারে ফাটল ধরেছে। এছাড়া কামারপাড়া ব্রীজের দেয়ালে ফাটল ধরেছে। প্রতিটি ট্রেন ব্রীজ দু’টির আগে একেবারে থামিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এরপর সেখানে দায়িত্বরত ওয়েম্যানদের কাছ থেকে ষ্টপ ডেড স্লিপ নিয়ে ব্রীজ পারাপার হচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, বংকিরাট ব্রীজের কাছে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ধুমকেতু এক্সপ্রেস, নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেন লাল পতাকা দেখিয়ে থামিয়ে দেওয়া হয়। এরপর ওয়েম্যান আব্দুস সামাদ এর কাছ থেকে ষ্টপ ডেড স্লিপ নিয়ে ট্রেন একেবারে কম গতিতে ব্রীজ পার করা হয়। বংকিরাটের ব্রীজের দায়িত্বে থাকা ওয়েম্যান আব্দুস সামাদ জানান, দিনের বেলায় দু’জন ও রাতে চারজন ওয়েম্যান এখানে দায়িত্ব পালন করছে। প্রতিটি ট্রেন এভাবে থামিয়ে দিয়ে চালকের হাতে ষ্টপ ডেড স্লিপ দেওয়া হয়। এদিকে কামারপাড়া ব্রীজে দায়িত্বে থাকা ওয়েম্যান আল আমিন জানান, এ ব্রীজ পারাপারে ট্রেন গুলো লাল পতাকা দেখিয়ে থামিয়ে দেওয়া হয়। এরপর ষ্টপ ডেড স্লিপ নিয়ে কমগতিতে ট্রেনগুলো ব্রীজ পার হয়। এদিকে আরো দেখা গেছে, কামারপাড়া ব্রীজ ও বংকিরাট ব্রীজে ট্রেনগুলো থামার পর বিভিন্ন গন্তব্যে আসা যাওয়ায় যাত্রীরা ট্রেনে উঠা নামা করছে। পশ্চিমাঞ্চল রেলের পাকশী বিভাগীয় রেল ব্যবস্থাপক মোঃ আহসান উল্লাহ ভুইয়া জানান, ক্ষতিগ্রস্থ ব্রীজ দু’টি মেরামত দ্রুত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।