পাবনার সাঁথিয়া থানায় আটককৃত ডাকাত দলের সদস্য।

আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে দুর্ধর্ষ ডাকাতদলের ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। শুক্রবার দিবাগতরাত ২টার দিকে বিশেষ অভিযান চালিয়ে এদেরকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো, পার্শ্ববর্তী বেড়া উপজেলাধীন জোড়দহ গ্রামের সুজনের ছেলে রিফাত সর্দার(২১),একই গ্রামের রোশনাই সর্দারের ছেলে নজরুল ইসলাম(১৯) বাঙ্গাবাড়ি গ্রামের আঃ বাতেনের ছেলে সজিব(১৯),একই গ্রামের মৃত আঃ খালেকের ছেলে শুভ(১৯), শানিলা শাহপাড়া গ্রামের আনিসুর রহমানের ছেলে শিমুল (১৯),আমিনপুর থানাধীন টাংবাড়ী গ্রামের ফজলালের ছেলে বাপ্পি(২৫), মাষ্টিয়া গ্রামের সফি প্রামাণিকের ছেলে সুজন(২৬)। এর আগে ২২ জানুয়ারী আরও ২জনকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। স্থানীয় ও থানাপুলিশ সুত্রে জানা গেছে কিছুদিন ধরে সাঁথিয়ায় ডাকাতি ও অপহরণকারী চক্র বাড়ির লোকজনকে জিম্মি করে ডাকাতি করতো এবং ব্যবসায়ীদের অপহরণ করে নিয়ে হত্যার ভয় দেখিয়ে মুক্তিপণ আদায় করতো। এদের জ¦ালায় অপহরণ ও ডাকাত আতংকে ছিল এলাকার ব্যবসায়ীরা। এদেরকে ধরতে মাঠে নামে পুলিশ। এরই ধারবাহিকতায় শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৭জনকে গ্রেফতার করে। এর আগেও ২জনকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। এ নিয়ে মোট ৯জনকে গ্রেফতার করা হল। তবে এদের মুলহোতা করমজা সরদার পাড়া গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে সুমন (২৩) এখনও ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে বলে থানা সূত্রে জানা যায়। সাঁথিয়া থানার ওসি তদন্ত আমিনুল ইসলাম বলেন, এর আগে ক্রসফায়ারে নিহত মুলহোতা ডাকাত সর্দার ওয়ালীউল্লাহর ডান হাত ছিল সুমন(২৩)। তিনি বলেন,বর্তমানে কিশোর গ্যাং এর লিডার হয়েছে সুমন। তার নেতৃতেই¡ সকল অপকর্ম চলছে। এর আগে দুজনকে আটকের পর থেকে সুমন গা ঢাকা দিয়েছে। তবে তাকে আইনের আওতায় আনতে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ঘটনার সতত্যা স্বীকার করে সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, এলাকায় অপহরণ ও ডাকাত মুক্ত করতে অভিযান চালিয়ে ডাকাত ও অপহরণদলের ৭ সক্রিয় সদস্য কে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের শনিবার(২৫ জানুয়ারী) পাবনা বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরন করা হয়েছে।