রংপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দূর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার ও শিক্ষার্থীদের মারপিটের অভিযোগ

জয়নাল আবেদীন: রংপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান আপেলের দূর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার, শিক্ষার্থীদের মারপিট, ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ এনে সাংবাদিক সন্মেলন করেছেন স্কুলের শিক্ষাথীদের অভিভাবকগণ। শনিবার দুপুরে রংপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সন্মেলন করে তারা এই অভিযোগ করেন। সাংবাদ সন্মেলনে অভিভাবকদের পক্ষে হোসেন শাহাদত লিখিত বক্তব্যে বলেন স্কুলের জনপ্রিয় গণিত শিক্ষক আব্দুল বাতেনকে বদলী ও স্কুলের অভ্যান্তরীন সমস্যা নিয়ে গত ২৫ ও ২৬ জানুয়ারী স্কুলের সামনের সড়কে মানববন্ধন বিক্ষোভ করে উপ-পরিচালক মাধ্যমিক অঞ্চল ও জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদান করে সেখানকার শিক্ষার্থীরা। প্রধান শিক্ষকের দূর্নীতির প্রতিবাদ করার কারনে তিনি ছাত্রদের কাজ থেকে ব্যানার কেড়ে নিয়ে অশ্লিল ভাষায় গালাগাল এবং তাদেরকে ভয়ভীত প্রদর্শন করে স্কুল থেকে টিসি দেওয়ার ভয় দেখান। সংবাদ সন্মেলনে বলা হয়, রংপুর জিলা স্কুল উত্তরবঙ্গের একটি শ্রেষ্ট প্রতিষ্টান। এখানে কোন অন্যায় অন্যায়, দুনূীতি ও অব্যবস্থাপনা আমাদের মেনে নেওয়া উচিৎ হবে না। ছাত্ররা যাতে মনোযোগ সহকারে স্বাস্থ্যকর দূর্নীতিমুক্ত এই প্রতিষ্টানটিতে লেখাপড়া করতে পারে সেজন্য আমাদের সকলের দৃষ্টি দেওয়া দরকার। স্কুলের প্রধান শিক্ষকের অপকর্মে সেখানকার অভিভাবকগণ উদ্বিগ্ন অবস্থায় রয়েছে। প্রতিষ্টান প্রধানের এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে সরকারের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সহযোগীতা কামোনা করছেন অভিবাবকেরা রংপুর জিলা স্কুলের ছাত্ররা অভিযোগ করে বলেন,গণিতের শিক্ষক আবুল বাতেনকে বদলী করে তার স্থানে একজন সমাজ বিজ্ঞানের শিক্ষকে অন্তভূক্ত করা হয়েছে। রয়ায়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষক সংকট। স্কুলটিতে শিক্ষার পরিবশ নেই। প্রতিটি ক্লাশ রুম ময়লা আর্বজনায় ভর্তি। টয়লেটের অবস্থা করুন। ক্লাশ রুমের সামনে ময়লা দিয়ে ভর্তি। মশার যন্ত্রনায় ক্লাশে টেকা মুশকিল। আমরা এর প্রতিবাদে আন্দোলন করায় আমাদেরকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভিতি প্রদর্শন করছে বলে ছাত্ররা জানান। সার্বিক বিষয়ে জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক এ আর মিজানুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, জেলা স্কুলকে টিপ টপ রাখতে ৫ কোটি টাকা দরকার। আয় হয় ১৯ লাখ টাকা। তবে তিনি সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছেন বলে জানান।