রায়পুরে আবারও আ'লীগের সেই দু'গ্রুপের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, হামলা, ভাংচুর

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে আবারও আ’লীগের দুই গ্রপের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাত ১১টা থেকে শনিবার গভির রাত পর্যন্ত-উপজেলার উত্তর চরবংশী ইউপির খাসেরহাট বাজার ও কয়েকটি বাড়ীতে ঘটনাগুলো ঘটেছে। সংবাদ পেয়ে আবার ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন রায়পুর থানা ও হাজিমারা ফাঁড়ি থানা পুলিশ। তবে এরিপোট লেখা পর্যন্ত কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ ও থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

শুক্রবার রাতে দুই গ্রুপের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২০ জন আহত হয়। গুরুত্বর জখম ১০ জনকে রায়পুর, লক্ষ্মীপুর ও ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এ ঘটনা এখনই মিমাংসা না হলে উভয় পক্ষের লোকদের মধ্যে আবারও হত্যার ঘটনা আশংকা করছেন গ্রামবাসী। পুরো ইউনিয়নজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

শুক্রবারের হামলায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীনরা হলেন, পান্নু মাঝি, সবুজ হাওলাদার, মাইনুদ্দিন আসামী, সোহাগ দেওয়ান, আব্দুল কাদের, রুহুল আমিন খলিফা, মোঃ মুযাহিদ।

রোববার সকালে সরজমিন গেলে আ’লীগ নেতা-কর্মীরা জানান, উপজেলা নির্বাচনের পর থেকে সতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন মাষ্টার ও আ’লীগের আহবায়ক ওসমান খাঁর অনুসারীদের মধ্যে উত্তর চরবংশী ইউনিয়ন আ’লীগ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে দলীয় কর্মকান্ড চলছিলো।-কয়েকবার সংঘর্ষ, ভাংচুর, আহত ও পাল্টাপাল্টি একাধিক মামলা হয়েছে। এ অবস্থায় আ’লীগ নেতা ওসমান খাঁ ও আলাউদ্দিন খাঁ চেয়ারম্যান আলতাফ মাষ্টারের সাথে মিমাংসা হয়ে যান এবং মামলা তুলে নেয়ার প্রক্রিয়াও চলছিলো। কিন্তু-খালেদ দেওয়ান ও রুহুল আমিন খলিফা মিমাংসা না হয়ে আলতাফ মাষ্টার লোকদের সাথে বিরোধ চালিয়ে আসছিলো। এ অবস্থায় শুক্রবার সকালে রুহুল আমিন খলিফার অনুসারী এক কর্মী ‘খাসেরহাট স্বাধীন হয়েছে ও প্রয়োজনে আবার স্বাধীন হবে’ এ পোষ্ট তার ওয়ালে লেখার উত্তরে আ’লীগ নেতা আলতাফ মাষ্টারের ভাতিজা যুবলীগ নেতা আওলাদ ‘খাসের হাট কবে স্বাধীন হয়েছে’ জানতে চাই” এ পোষ্ট লেখেন। এতেই দুই গ্রুপের মধ্যে আবার হুমকি শুরু হলে রাতেই সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। উভয় পক্ষের প্রায় ২০ নেতা কর্মী আহত হন। ১০ জনকে রায়পুর, লক্ষ্মীপুর ও ঢাকা পঙ্গু হাসপাতারে ভর্তি করা হয়েছে। এসময় আলতাফ মাষ্টারের গাড়ি ও কার্যালয় ভাংচুর করায় তার ক্ষুদ্ধ অনুসারীরা তাদের প্রতিপক্ষদের বাড়ীঘর কুপিয়ে ভাংচুর করে। এর পাল্টা জবাবে শনিবার রাত পর্যন্ত রুহুল আমিন খলিফা, খালেদ দেওয়ানে লোকদের সাথে আলতাফ মাষ্টার লোকদের ধাওয়া -পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তবে কেও আহত হয়নি।। পরিস্থিতি নিয়ন্তন্রনে পুলিশ খাসেরহাট বাজারে অবস্থান করছেন।

এঘটনায় রুহুল আমিন ও রাশেদ খলিফা জানান, শুক্রবার রাতে আ’লীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে দলীয় সভা করছিলাম। এ সময় সবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলতাফ মাষ্টারের ভাতিজা আলাউদ্দিন মিথ্যা অজুহাতে ঝগড়া লাগিয়ে সংঘর্ষের সৃষ্টি করেছে। আমাদের ৬ নেতা-কর্মী লক্ষ্মীপুর ও ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

রায়পুর থানার ওসি আব্দুল জলিল জানান, রাতে সংবাদ পেয়েই আবারও ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে এবং উভয় পক্ষের লোকদের শান্ত রাখতে এখনো পুলিশ অবস্থানে রাখা হয়েছে। কাউকে আটক করা হয়নি