চান্দিনায় ২৪ পরিবারের যাতায়াতে দুর্ভোগ দেখার কেউ নেই

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুমিল্লার চান্দিনায় সরকারি একটি পুকুর লিজ নিয়ে নিয়ন্ত্রণহীন উপায়ে মৎস্য চাষ করায় ধ্বসে পড়েছে পুকুরের পাড়। পাড় ভেঙ্গে বিলীন হয়ে গেছে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। ভেঙ্গে পড়ছে মানুষের ঘর-বাড়ি ও বসতভিটা। উপজেলার জোয়াগ ইউনিয়নের কান্দি গ্রামের ৯২ শতাংশের ওই পুকুরটি দীর্ঘ কয়েক বছর যাবৎ এলাকার মানুষের দুর্ভোগের কারণ হলেও যেন তা দেখার কেউ নেই! সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়- জোয়াগ ইউনিয়নের জোয়াগ মৌজার ৯২শতাংশের খাস পুকুরটি প্রতি ৩ বছর পরপর ইজারা দেয় উপজেলা ভূমি অফিস। যারাই ইজারা নেয় তারাই যে যার মত সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও যথাযথ পরিকল্পনা ছাড়া মৎস্য চাষ করে আসছে। পুকুরটির পানি নিস্কাশনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত পানিতে টইটুম্বুর হয়ে ধ্বসে পড়ছে পুকুরের চার পাড়। ইতোমধ্যে বিলীন হয়ে গেছে পুকুরের পশ্চিম পাড়ে থাকা একটি কাঁচা সড়ক। যে সড়ক দিয়ে যাতায়াত করতো পুকুর পাড়ের অন্তত ২৪টি পরিবারের সদস্যরা। পুকুরের পশ্চিম-দক্ষিণ কোণে থাকা মসজিদে নামাজ আদায় করতে আসতো প্রায় শতাধিক মুসল্লি। পুকুরে সড়কটি বিলীন হয়ে যাওয়ায় এখন মসজিদে যাতায়াত নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে ওই এলাকার মুসল্লীরা। সম্প্রতি পানি পেরিয়ে প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করতে মসজিদে যাতায়াত করছেন তারা। পুকুরটির দক্ষিণ পাড় ধ্বসে পড়ায় বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার হচ্ছে পাড়ে থাকা কয়েকটি বাড়ির বাসিন্দা ও মুসল্লীরা। কান্দি পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদের ঈমাম হাফেজ মাও আবু ইউসুফ জানান- প্রায় ১২ বছর যাবৎ আমি এই মসজিদের ঈমাম। পুকুরটির চার পাড় অনেক প্রশস্ত ছিল। পশ্চিমপাড়ে একটি কাঁচা সড়ক ছিল। সবকিছু পুকুরে বিলীন হয়ে গেছে। মুসল্লীরা মসজিদে নামাজ আদায় করতে আসতে পারছে না। সকালে মক্তবে আসতে পারছে না এলাকার ছোট ছেলে-মেয়েরা। পুকুরটির পানি নিস্কাশন করে পাড় বাঁধাইসহ সড়ক নির্মাণ করা একান্ত প্রয়োজন। স্থানীয় বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য দেলোয়ার হোসেন জানান- এই পুকুরের পশ্চিমপাড়ের সড়কটি দিয়ে এলাকার শতশত কৃষক মাঠ থেকে ফসল ঘরে উঠাতো। কিন্তু এখন সড়কের কোন চিহ্ন নেই। পুকুরটিতে ড্রেজিং করে মাটি কাটার কারণে এখন পুকুরের চার পাড় ধ্বসে পড়ছে। আমাদের বাড়ি-ঘরও ভেঙ্গে যাচ্ছে। স্থানীয় বাসিন্দা কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী রবিউল আলম জানান- সরকারিভাবে প্রতি ৩ বছর পরপর পুকুরটি লিজ দেওয়া হয়। যারা লিজ নেন কেউ পুকুরের পাড়ে একটু মাটিও ফেলেন না। সরকারি ভাবেও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। কয়েক বছর আগে এক ইজারাদার সরকারি পুকুর লিজ নিয়ে ড্রেজিং করে মাটি নিয়ে গেছে। তাদের বিরুদ্ধেও সুষ্ঠু তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবি জানাচ্ছি। এ ব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বিভীষণ কান্তি দাশ জানান- নিয়মানুযায়ী যারাই পুকুর ইজারা নেন তারাই পুকুরের পাড়ে মাটি ফেলে মৎস্য চাষ করার কথা। কিন্তু সেটাও যদি তাদের সাধ্যের বাহিরে হয় তাহলে তারা লিখিত ভাবে আমাদের অবহিত করবে এবং আমরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। তবে ওই পুকুরের বিষয়ে এর আগে কেউ আমাদের জানায়নি। এখন যেহেতু জেনেছি, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।