জয়নাল আবেদীন: কখনো পুলিশ নিজে আবার কখনো ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সকল অনিয়ম বন্ধে কাজ শুরু করেছে রংপুরের প্রশাসন । এরই ধারাবাহিকতায় রংপুর নগরীকে পলিথিন মুক্ত করার লক্ষে নবাবগঞ্জ বাজারে মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশ পরিবেশ দূষণকারী পলিথিন বিরোধী সাঁড়াশি অভিযানে ৪ টি পলিথিনের দোকান এবং সংশ্লিষ্ট ৪ টি গুদাম থেকে ১শ৫২ বস্তা নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ করেছে । প্রায় ৩হাজার ৫০কেজি ওজনের এই পলিথিনের বাজার মূল্য প্রায় সাড়ে ৯লাখ টাকা গোপন সংবাদ পেয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন গোযেন্দা বিভাগের একটি দল রংপুর সুপার মার্কেট সংলগ্ন নবাবগঞ্জ মার্কেটে অভিযান পরিচালনা করে মোঃ ওবায়দুল ইসলাম , রংপুর এর চায়না লেন মেসার্স নয়ন স্টোর নামে দোকান ও ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ৬০ বস্তা সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। মোঃ আমান উল্ল্যাহ খান ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ৬০ বস্তা মোঃ ফরিদ ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ২৪ টি পুরাতন প্লাষ্টিকের বস্তার ভিতরে রক্ষিত অবস্থায় ৪শ৮০ কেজি, এবং মোঃ আবু তাহের ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ০৮ টি পুরাতন প্লাষ্টিকের বস্তার ভিতরে রক্ষিত সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। জব্দকৃত পলিথিনের মালিক ও অপরাধের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আরপিএমপি কোতয়ালী থানায় মামলা রুজু করা হয়। মামলাগুলো যথাক্রমে আরপিএমপি, কোতয়ালী থানার মামলা নং- ৫৩,৫৪,৫৫,৫৬ এবং সবগুলো মামলাই ‘পরিবেশ সংরক্ষণ আইন-১৯৯৫(সংশোধনী/২০১০)’ এর ৪(ক)/(খ)’ ধারা।পলিথিন আমাদের পরিবেশ ও মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। স্বাভাবিকভাবে পলিথিন পঁচনশীল নয়। ব্যবহৃত পলিথিনের পরিত্যক্ত অংশ দীর্ঘদিন অপরিবর্তিত ও অবিকৃত থেকে মাটি, পানি ইত্যাদি দূষিত করে। পলিথিন মাটির উবর্বরতা হ্রাস করে ও মাটির গুনাগুন পরিবর্তন করে ফেলে। পলিথিন পোড়ালে এর উপাদান পলিভিনাইল ক্লোরাইড পুড়ে কার্বন মনোক্সাইড উৎপন্ন হয়ে বাতাস দূষিত করে। পলিথিনের ব্যাগ ও অন্যান্য জিনিস শহরের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। ‘নারডল’ নামক এক প্রকার প্লাস্টিক বর্জ্য সমুদ্রের পানিতে মিশে পানি দূষিত হচ্ছে। এতে সামুদ্রিক জীববৈচিত্র হুমকির মুখে পড়ছে। পলিথিন ও বিভিন্ন প্লাস্টিক পণ্য ব্যাপকভাবে ব্যবহারে সারাদেশে খাল-বিল, নদী-নালা থেকে শুরু করে সমুদ্র্র পর্যন্ত প্লাস্টিক ছড়িয়ে পড়ছে। এতে পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে। যত্রতত্র পলিথিনের ব্যবহারের ফলে মানবদেহে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যাসহ ক্যান্সারও হয়। সেই সাথে মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে জীববৈচিত্র্য।জব্দকৃত পলিথিনের উৎপাদন, মজুদ, পরিবহন ও বাজারজাতকরণ থেকে খুচরা বিক্রির সাথে জড়িত সকলকে তদন্তের মাধ্যমে সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।রংপুর মহানগরী এলাকাকে সরকার কর্তৃক ঘোষিত নিষিদ্ধ পলিথিন মুক্ত করার লক্ষ্যে রংপুর মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) টিম এর অভিযান অব্যহত থাকবে। গোয়েন্দা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান নির্দেশনায় সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ ফারুক আহমেদ এর পরিকল্পনা ও নেতৃত্বে ইন্সপেক্টর মোঃ সালেহ আহমেদ পাঠান, ইন্সপেক্টর এবিএম ফিরোজ ওয়াহিদ, এসআই গোলাম মোর্সেদ, এসআই তছলিম উদ্দিন আহমেদ, এসআইমোঃ নাজমুল ইসলাম, এসআইমোঃ আবু ছাইয়ুম তালুকদার, এসআই মোঃ লাকু সরকার এবং সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্সসহ পরিবেশ অধিদপ্তর, রংপুর এর প্রতিনিধীদের সহায়তায় এই অভিযান পরিচালিত হয়।

Previous articleরাজধানীতে ভুয়া শ্রম পরিদর্শক গ্রেফতার
Next articleআ’লীগ প্রার্থীর বিপরীতে অন্য প্রার্থীরা জামানত হারাবে: হানিফ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।