অতুল পাল: দক্ষিণ বাংলার ঐতিহ্যবাহী পটুয়াখালীর বাউফলের মৃৎ শিল্পের সুনাম দেশের গন্ডী পেরিয়ে বিদেশেও রয়েছে। বাংলার লোকজ কৃষ্টি ও সংস্কৃতিকে শিল্পীর নিঁপুন হাতে ফুটিয়ে তোলা হয় বাউফলের এই মৃৎ শিল্পের মধ্য দিয়ে। বিশ্বের মানুষ চিরায়ত বাংলার সংস্কৃতি খুঁজে পায় এই শিল্পের মাধ্যমে। কিন্তু মহামারি করোনার থাবায় কঠিন অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলা করছে এই শিল্পের সাথে জড়িত বাউফলের প্রায় সহা¯্রাধিক পরিবার। বৈশাখী মেলা এবং দেশের খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানে সরবরাহের জন্য লাখ লাখ টাকার মৃৎ পণ্য তৈরী করে সেগুলো সরবরাহ করতে না পেরে বিপাকে পড়েছে মৃৎ শিল্পের সাথে জড়িত শিল্পীরা। সরেজমিন দেখা গেছে, বাউফলের মদনপুরা, কনকদিয়া ও বগা ইউনিয়ন এবং বাউফল ইউনিয়নের বিলবিলাস এলাকায় প্রায় ৫ শতাধিক পরিবার এই শিল্পের সাথে জড়িত। এছাড়াও এ শিল্পের সাথে সহ-কারিগর হিসেবে জড়িত রয়েছে আরো প্রায় ৫ শতাধিক পরিবার। বৈশাখী মেলাকে কেন্দ্র করে হরেক রকমের মাটির পণ্য তৈরী করে ঘরে মজুদ করে রেখেছেন। করোনার কারণে বৈশাখী মেলা অনিশ্চিত হওয়ায় এবং অর্ডার করা প্রতিষ্ঠানগুলোতে তৈরীকৃত পণ্য সরবরাহ করতে না পাড়ায় দুশ্চিন্তার ছাপ পড়েছে তাদের কপালে। এক সময় দেশের প্রায় সকল সাধারন মানুষই সাংসারিক কাজে মাটির তৈরী হাড়ি, পাতিল ও বাসন-কোসন ব্যবহার করতেন। হাতে গোনা দু-চারটি পরিবার তামা, কাশা ব্যবহার করতেন। দেশে প্লাটিক ও সিলভার শিল্পের বিকাশের পর ক্রমেই ধস নামে মৃৎ শিল্পের। আধুনিক যুগের প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে মৃৎ শিল্পের সাথে জড়িত অনেকেই এই পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় চলে যান। ১৯৯০ এর দিকে বাউফলের আধুনিক মৃৎ শিল্পের পূরোধা বলে ক্ষ্যাত বিশ্বেশ্বর পাল ঢাকার আড়ং সহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে চিরায়ত বাংলার এই শিল্পকে রক্ষার উদ্যোগ নেন। আধুনিক রুচির মৃৎ শিল্পের উপর প্রশিক্ষিত করানো হয় কয়েকজনকে। এরপর প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার নতুন যুদ্ধ শুরু করেন তারা। আধুনিক রুচি সম্মত ডিজাইন অনুযায়ি মাটির সাথে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক রং দিয়ে তৈরী করতে থাকেন দৃষ্টি নন্দন চায়ের কাপ-পিরিচ, ডিনার সেট, জগ- গøাস, ফুলদানী, শো-পিচ, নানা ধরণের খেলনা, ধর্মীয় অনুশাসনের লিপি, কয়েলদানী ইত্যাদি। আগুণে পোড়ানোর পর এগুলোর উপর নারী শিল্পীদের নিঁপুন হাতে বাংলার চিরায়ত সংস্কৃতি ফুটিয়ে তোলা হয়। এরপর দেশের বিভিন্ন স্থানের বিখ্যাত বিখ্যাত মেলায় এগুলো ষ্টলে বসিয়ে উপস্থাপণ করা হয় মানুষের সামনে। ক্রমেই দৃষ্টি আকর্ষণ হয় সর্ব শ্রেণির মানুষের। স্থান পেতে থাকে দেশের বিখ্যাত বিখ্যাত প্রতিষ্ঠানের শো-রুমে। বাউফলের মৃৎ শিল্প পরিচিত হয়ে উঠে দেশের সর্বত্র। গাড়ি করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে শত শত মানুষ সখের মৃৎ শিল্প সংগ্রহ করতে চলে আসছে বাউফলের মৃৎ পল্লীতে। এক পর্যায়ে নজর কারে বিদেশীদেরও। এরই ধারাবাহিকতায় সৌখিন এই মাটির পণ্য রপ্তানী হতে থাকে জাপান, নেদারল্যান্ডস, আমেরিকা এবং কেনাডাসহ প্রভৃতি দেশে। অর্জন করতে থাকে বিদেশী মূদ্রা। শিল্পের সাথে জড়িত পরিবারগুলোর মধ্যে আর্থিক, সামাজিক স্বচ্ছলতা ফিরে আসে। প্রায় আড়াই যুগ দাপটের সাথে প্রতিযোগিতা করে দেশ এবং বিদেশে বাউফলের মৃৎ শিল্প স্থায়ী ঠিকানা করে নিতে সক্ষম হয়।

কিন্তু ২০২০ থেকে করোনার প্রার্দুভাব এবং সামাজিক কিছু সমস্যা শুরু হলে ঝিমিয়ে পড়তে থাকে এই শৈল্পীক ব্যাবসাটি। পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠিত মেলাগুলো সামাজিক সমস্যা ও করোনার কারণে বন্ধ রয়েছে। ফলে তৈরীকৃত মালামালগুলো যথা সময়ে বিক্রি করতে না পাড়ার কারণে অর্থনৈতিক সংকটে পড়ছেন মালিক-শ্রমিক সকলেই। বৈশাখী মেলা হবে কী হবে না এটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে মৃৎ শিল্পের সাথে জড়িত পরিবারগুলো। অপরদিকে লকডাউনের কারনে মালামাল সরবরাহ করতে পারছেন না। চাহিদাও অনেকটা কমে গেছে। ফলে লাখ লাখ টাকার পণ্য ঘরে মজুদ হয়ে পড়ে রয়েছে। ২০২১ সালের প্রথম দিকে করোনার প্রভাব কিছুটা কমে গেলে এবং বৈশাখী মেলাকে সামনে রেখে বাউফলের প্রায় সকল পরিবারেই মালামাল তৈরীতে ব্যস্ত সময় পাড় করছিল। কিন্তু হঠাৎ লক ডাইন শুরু হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন এই শিল্পের সাথে জড়িতরা। বাউফলের মৃৎ শিল্পের অন্যতম কর্ণধার বরুন পাল জানান, প্রায় ৩০ লাখ টাকার মালামাল প্রস্তুত রয়েছে। হঠাৎ লক ডাইনের কারণে মালামাল সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া বৈশাখী মেলা নিয়েও রয়েছে সংশয়। তিনি বলেন, বছরের এই সময়টায়ই বেশি পণ্য চলে। সে চিন্তা করে সকল পুঁজি একাজে ব্যয় করেছি। এখন মালামাল নিয়ে মহাবিপদে পড়েছি। শুধু আমরা মালিক পক্ষই নয়, একাজের সাথে প্রায় সহা¯্রাধিক সহ-কারিগড় তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। তিনি সরকারের কাছে বৈশাখী মেলা বন্ধ না করারও আহবান জানান। আধুনিক মৃৎ শিল্পের একমাত্র নারী উদ্যোক্তা বাউফলের মদনপুরার ইউনিয়নের পাল পাড়ার র²ী রানী পাল জানান, বৈশাখ মাসে মেলা বন্ধ হলে আমাদের মাথায় হাত পড়বে। বৈশাখী মেলা এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অর্ডারকৃত মালামাল তৈরী করে প্যাকেজও করা হয়েছে। লক ডাউনের কারণে মালামাল সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। আমরা কারিগড় নিয়ে দারুন অর্থনৈতিক সংকটে রয়েছি। এলাকার সুশীল সমাজ এবং সূধীজন মনে করেন, বাংলার চিরায়ত ঐতিহ্য বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠানে সরকারের সার্বিক সহযোগিতা করা দরকার। একই সাথে এই শিল্পের সাথে জড়িতদের করোনাকালীন সময়ে আর্থিক প্রনোদনা সহায়তা দিয়ে এই শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখা সরকারের উচিৎ।

Previous articleউখিয়ায় র‍্যাবের হাতে ইয়াবাসহ আটক ২
Next articleপ্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা তোয়াক্কা না করেই চলছে পুণ্যতীর্থ স্নান ও ওরশ উদযাপন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।