স্বপন কুমার কুন্ডু:  রেলওয়ের রানিং কর্মচারী ট্রেন চালক, পরিচালক, টিটিই ট্রেন অপারেশনের সাথে সম্পৃক্তরা রানিং ভাতার (মাইলেজ) দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান করেছে। পশ্চিমাঞ্চল রেলের পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপকের কার্যালয়ের সামনে সোমবার (১৪ জুন) এই বিক্ষোভ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেন চালক লোকোমাস্টারদের সংগঠন বাংলাদেশ রেলওয়ে রানিং স্টাফ ও শ্রমিক কর্মচারী সমিতি (রেজি-বি ১৮৭৮) আয়োজিত বিক্ষোভে রানিং ভাতা বন্ধ করে দেওয়ায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়। পাকশীতে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সম্মিলিত সমাবেশে রেলওয়ের রানিং ষ্টাফরা জানান, যে কোন মূহুর্তে ট্রেন চলাচল বন্ধ হতে পারে।

সমাবেশে ট্রেনের রানিং ষ্টাফরা বলেন, দিন-রাত, ঝড়-বৃষ্টি মহামারী উপেক্ষা করে রেলওয়েকে গতিশীল রাখতে জীবনের ঝুকি নিয়ে তারা দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে ট্রেন যাত্রীদের সেবাদানসহ দেশের অর্থনীতিতে সম্মুখ সারীর যোদ্ধা হিসাবে কাজ করে আসছে। বাংলাদেশ Establishment code volume। এর Chapter V এর প্যারা নং -৫০৯ এবং Locomotive এবং Running shed mannual এর Chapter -Xiii এর ১০৩৯ মোতাবেক ১০০ মাইল বা প্রতি ৮ ঘন্টা ট্রেন পরিচালনার জন্য রানিং স্টাফগণ ১ দিনের মূল বেতনের সমপরিমান অর্থ রানিং ভাতা / মাইলেজ হিসাবে প্রাপ্য হবেন। রেলওয়ে আইন-১৮৯০ এর Chapter V।A এর অনু : ৭১C অনুযায়ী একজন রেলওয়ে কর্মচারী সপ্তাহে সর্বোচ্চ ৮৪ ঘন্টার বেশি ডিউটি করবে না। Chapter V।A (৭১D) অনুচ্ছেদ এ সাপ্তাহিক রবিবার বিশ্রামের দিন ও উল্লেখ আছে। অর্থাৎ রবিবার বা সাপ্তাহিক যেকোনো বন্ধের দিনে ডিউটি করলে Holiday মাইলেজ প্রাপ্তির বিধান আছে। যা বর্তমানে বিলুপ্ত। হোল্টেজ মাইলেজ ও বিলুপ্ত। একজন রানিং স্টাফ দৈনিক ১২ ঘন্টা করে মাসে সর্বোচ্চ ৩৬০ ঘন্টা (৪৫ দিন মাইলেজ) কর্মঘন্টার বিধান আছে। কিন্তু বাংলাদেশ রেলওয়েতে ট্রেন চালক স্বল্পতার কারণে প্রতি মাসে লোকোমাস্টার দের ৪৮০ ঘন্টা (৬০ দিন মাইলেজ ) থেকে ৫৬০ ঘন্টা (৭০ দিন মাইলেজ ) বা তাঁর অধিক হয়ে থাকে। বর্তমানে অর্থ মন্ত্রণালয় ঘোষিত IBAS++ সিস্টেমে রানিং কর্মচারীদের মাইলেজ তথ্য ইনপুটের ক্ষেত্রে Error জটিলতা দেখা দিয়েছে। অর্থাৎ IBAS++ সফটওয়্যার টি ৩০ দিনের বেশি মাইলেজ ভাতা ইনপুট নিচ্ছে না। এই সংক্রান্ত জটিলতার কারণে গদ ১ জুন প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী (পূর্ব ও পশ্চিম) হতে অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অর্থ), রেলভবন, ঢাকায় চিঠি ও দেয়া হয়েছিল।

সমাবেশ শেষে পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) শহিদুল ইসলামের নিকট স্বারকলিপি প্রদান করা হয়। বাংলাদেশ রেলওয়ে রানিং স্টাফ ও শ্রমিক কর্মচারী সমিতি কেন্দ্রিয় কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম, রাজবাড়ী শাখার সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, রাজশাহী শাখার সভাপতি মোহাম্মদ আসাদসহ পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের রানিং স্টাফ ও শ্রমিক কর্মচারী সমিতির সকল সদস্য এসময় উপস্থিত ছিলেন।

Previous articleশাহজাদপুরে মোহাম্মদ নাসিমের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত
Next articleবাউফলে ৯ ইউনিয়নে নির্বাচন ২১ জুন: বৃদ্ধি পাচ্ছে নির্বাচনী সহিংসতা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।