জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে আদালত উপেক্ষা করে একটি বিরোধপূর্ণ জমির দখল নিতে গেলে সৃষ্ট সংঘর্ষে ৬ জন নারী পুরুষ আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ২ জন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ওই দিন সন্ধ্যায় আল মামুন নামের এক যুবককে আটক করেছে। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ২০২০ সাল থেকে উপজেলার তেঘরী গ্রামের মৃত আব্দুর রহিমের ছেলে আব্দুল বারীকের সাথে পৈত্রিক ৯০ শতক জমি নিয়ে তার চাচা একই গ্রামের মৃত তফেজউদ্দীনের ছেলে আমজাদ হোসেনগংদের বিরোধ চলে আসছিল। আমজাদ হোসেনগংরা প্রায় সময় ওই জমি জবর দখলের হুমকি দেয়ায় আব্দুল বারীক বাদি হয়ে যশোর আমলী আদালতে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞার মামলা করেন। এছাড়া প্রতিপক্ষ আমজাদ হোসেনের রেকর্ড সংশোধনী মামলাও আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এদিকে, গত ২৪ জুন বিকেলে আদালতের এ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আমজাদ হোসেনের নের্তৃত্বে আব্দুস সবুর, আল মামুনসহ ৮/১০ জন যুবক লাঠিসোটা নিয়ে আব্দুল বারীকের মৎস্য খামারের জমি দখলে নিতে যায়। খবর পেয়ে জমি দখলে বাধা দিলে উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এতে আব্দুল বারীক, আব্দুুর রাজ্জাক, মুজাহিদ হোসেন,সোহের আহমেদ, কামারুন্নেছা বেগম ও হুমাইরা খাতুন আহত হয়। এদের মধ্যে আব্দুল বারীক ও আব্দুুর রাজ্জাকে মারাতœক আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এছাড়া প্রতিপক্ষের আল মামুন পুলিশের হাতে আটক হওয়ার খবরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আমজাদ হোসেন হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়েছে বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ বোরহানউদ্দীন জানান, ওই জমি নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। ঘেরের জমি নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন রয়েছে। গত ২০/২৫ দিন আগে উভয়পক্ষকে নিয়ে সালিসি বৈঠক করে আদালতের রায় যার পক্ষে যাবে তাকে জমি বুঝে দেয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। কিন্তু এ সিদ্ধান্ত অমান্য করে আমজাদ হোসেনগংরা জমির দখল নেয়ার চেষ্টা করায় তাদের একজনকে আটক করা হয়েছে।

Previous articleমেহেদীর রং না মুছতেই লাশ হলো নববধূ, স্বামী আটক
Next articleকোম্পানীগঞ্জে আ.লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৭
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।