রেজাউল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠির রাজাপুরে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা হুহু করে বেড়েই চলেছে। গত ২৪ জুন একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত ১৭ জনকে ছাড়িয়ে আজ মঙ্গলবার (২৯ জুন) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১৮ জনের সংক্রমন শনাক্ত হয়। মঙ্গলবার দুপুরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

এ দিকে সচেতনতা বৃদ্ধি ও সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে করোনার দ্বিতীয় ওয়েভের বিধিনিষেধ চলাকালীন গত দিনগুলোর অভিজ্ঞতাকে পাশ কাটিয়ে আজ উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশকে সচেতনতা সৃষ্টিতে মাঠে কাজ করতে দেখা গেছে। করোনার প্রাদুর্ভাব দিন দিন বাড়তে থাকার পরও করোনা সচেতনতায় সাধারণ মানুষ অনেকটাই অসেচতনভাবে ঘোরাফেরা ও কেনাকাটা করছে। করোনা আক্রান্তের হার বাড়লেও মানুষের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মানার ও মুখে মাস্ক ব্যবহারের কোন বালাই নেই খোদ উপজেলা শহরেই। মানুষজন মাস্ক ছাড়াই বাজার ঘাটে চলাচল করছে, প্রশাসনের কোন নজরদারি নেই। রাজাপুরে এ পযর্ন্ত করোনাভাইরাস শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪১৭ জনে। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তির মধ্যে নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ সদস্য, সংবাদ কর্মী, ব্যাংক কর্মী ও চিকিৎসক সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। বর্তমানে উপজেলা স্বান্থ্য কেন্দ্রে ৪ বেডের করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি আছে ৭ জন। বাড়িতে বসে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১০০ জন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীর চাপ সামলাতে ১২ বেডের আর একটি করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড প্রস্তুত রেখেছেন। আর এ কারনে উপজেলার সাধারন রোগীদের চিকিৎসা সেবা ব্যহত হতে পারে বলে শংকা প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক স্বাস্থ্য কর্মী জানান, পূর্বে রাজাপুরে করোনা সংক্রমণের হার অনেক কম ছিল। কিন্তু গত কয়েক দিন ধরে হঠাৎ করে করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। আমাদের হাসপাতালের আউটডোর ও জরুরি বিভাগে এখন প্রায়ই করোনা উপসর্গ নিয়ে আসা রোগী পাওয়া যাচ্ছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.আবুল খায়ের মাহমুদ রাসেল বলেন, “করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ার কারণে আমরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১২ বেডের নতুন আর একটি করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ড প্রস্তুত রেখেছি। শতাদিক রোগী নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। কারও সংক্রামনের কারনে অসুস্থতা বেড়ে গেলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার উদ্দেশ্যেই এ সামান্য আয়োজন। এমতাবস্থায় এই অঞ্চলের মানুষের প্রতি আমাদের সতর্কবার্তা এটিই তারা যেন ঘরেরর বাহিরে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করেন এবং যে কোনো ধরনের উপসর্গ দেখা মাত্র চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়। একই সঙ্গে তারা যেন করোনা পরীক্ষা করান। আমরা এ বিষয়ে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় রয়েছি, যেকোনো ধরনের উপসর্গ নিয়ে আসা প্রতিটি নাগরিককে স্ক্রিনিং এর আওতায় আনছি।”

Previous articleটেকনাফে ব্যাংকের ভেতর পাওয়া গেল ইনচার্জের মৃতদেহ
Next articleসাঁথিয়া হাসপাতালে চিকিৎসা সরঞ্জাম ও জনবল সংকটে স্বাস্থ্যসেবা ব্যাহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।