অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্তা ব্যাক্তিদের চরম অবহেলায় শিক্ষার্থীদের জন্য সরকারের দেয়া কোটি টাকার পাঠ্যপুস্তক নস্ট হচ্ছে। কোটি টাকার পাঠ্যপুস্তক নস্ট হয়ে যাচ্ছে এমন খবরেও কর্তৃপক্ষের অনুভূতি চোখে পড়ছে না।

এনিয়ে অভিভাবক,শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও বইপ্রেমীরা ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। জানা গেছে, বাউফলে ৬১ টি মাধ্যমিক ও ৬৭ টি দাখিল পর্যায়ের এমপিওভূক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এরমধ্যে কিছু সংখ্যক কলেজিয়েট স্কুল এবং আলিম সংযুক্ত ফাজিল প্রতিষ্ঠান রয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চাহিদা অনুযায়ী সরকার বিণামূল্যে পাঠ্যপুস্তক উপজেলায় পাঠান। বই আসার পর বাউফল সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন বীর মুক্তিযোদ্ধা অডিটরিয়ামে রাখা হয়। এরপর সেখান থেকে তালিকা অনুযায়ী সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছে পাঠ্যপুস্তক হস্তান্তর করার পর অবশিষ্ঠ পাঠ্যপুস্তক ফেরত বা ভালভাবে সংরক্ষণ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু বিতরণের পর অবশিষ্ঠ থাকা কোটি টাকার কয়েক হাজার পাঠ্যপুস্তক অডিটরিয়ামে অযতœ-অবহেলায় ফেলে রাখা হয়েছে। সরেজমিন দেখা গেছে, শিক্ষার্থীদের চাহিদা মেটানোর পরেও ২০১৮, ২০১৯, ২০২০ ও ২০২১ সালের ষষ্ঠ, সপ্তম, অস্টম ও নবম শ্রেণির মাধ্যমিক ও দাখিল শ্রেণির কয়েক হাজার বইয়ের স্তুপ ওই অডিটরিয়ামে অযতেœ পড়ে রয়েছে। যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে বৃষ্টির পানি ও টয়লেটের ময়লা পানিতে বইয়ের স্তুপগুলো পঁেচ-গলে একাকার হয়ে রয়েছে। দেখে মনে হচ্ছে বিশাল ময়লার ভাগার।

সুযোগ বুঝে স্থানীয় কিছু অসাধু লোকজন বেশ কিছু বইয়ের স্তুপ চুরি করে ফেরিওয়ালা ও দোকানীদের কাছে বিক্রি করছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। বইগুলো রক্ষণাবেক্ষণের জন্য রয়েছে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি। রক্ষণাবেক্ষণের জন্য একজন প্রহরীও রাখা আছে। কিন্তু অযতœ অবহেলায় কোটি টাকার বই নস্ট হতে থাকলেও ওই কমিটির কোন মাথা ব্যাথা নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক জানান, নৈশ প্রহরী ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য যেসব অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয় সেই বরাদ্দ কাজে না খাটিয়ে আত্মসাৎ করা হয়। ফাহিম, রাসেল ও সুমন কয়েক শিক্ষার্থী জানায়, অনেক শিক্ষার্থী বই পাচ্ছেনা অথচ এখানে হাজর হাজার বই নষ্ট হচ্ছে। তারা আরো বলেন, বইগুলো বাইন্ডিং করা অবস্থায় পরে থাকায় ছেলেরা বইয়ের স্তুপ দিয়ে ক্রিকেটের স্টাম্প সাজিয়ে খেলা করে। বাউফল মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নার্গিস আক্তার জাহান বলেন, তার ক্যাম্পাসের পাশেই মুক্তিযোদ্ধা অডিটরিয়ামে বইগুলো রাখা হয়েছে। হাজারো বই পানিতে নষ্ট হচ্ছে এবং বইগুলো প্রায়ই স্থানীয় কিছু লোকজন বিক্রি করছে। অনেক সময় নৈশ প্রহরী তাদেরকে ধরতে সক্ষম হলেও কর্তৃপক্ষের উদাসিনতার কারণে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছি। বিষয়টি তিনি মাধ্যমিক অফিসারকে অনেকবার জানিয়েছেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাজমুল হাসান বলেন, শিক্ষার্থীদের জন্যে আনা বিণামুল্যে সরকারের দেয়া পাঠ্যবই নষ্ট হতে পারেনা। তবে তিনি সাত মাস আগে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন, বিষয়টি তিনি দেখবেন। পটুয়াখালী জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীদের পাঠ্যবই নষ্ট হয়ে থাকলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করবো।

Previous articleকুমিল্লা-৭ আসনের উপ-নির্বাচন: আওয়ামীলীগের টিকিট পেলেন ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত
Next articleলেবুখালীতে নবনির্মিত পায়রা সেতুটি ‘শহীদ আলাউদ্দিন সেতু’ নামকরনের দাবীতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।