আহাম্মদ কবির: দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট ও পরিবেশ বান্ধব পর্যটন এলাকার ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন বিভিন্ন স্থানে প্রতিদিন শতশত পর্যটকবাহী নৌকায় হাজার হাজার পর্যটকের আনাগোনা,আর এসব পর্যটকবাহী নৌযানের বেশিরভাগ নৌকাতেই নেই পর্যাপ্ত টয়লেট।থাকলেও দেখা যায় নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নেই।তাই প্রতিদিন পর্যটকদের বিপুল পরিমাণ মানববর্জ্য সরাসরি পড়ছে নদী ও হাওরের পানিতে।সেই পানিতেই চলছে নদী ও হাওর পাড়ের বসবাসরত জনগোষ্ঠীর ধোয়ামোছার কাজ।এতে একদিকে দূষিত হচ্ছে হাওরের পরিবেশ অন্যদিকে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছে স্থানীয় নদী ও হাওর পাড়ের মানুষ।

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বৌলাই,পাটলাই ও যাদুকাটা নদী সহ টাঙ্গুয়ার হাওরের বিভিন্ন অংশ দিয়েই প্রতিদিন চলছে এসব পর্যটকবাহী নৌযান। সেগুলোর টয়লেটের দুরবস্থা দেখে ভড়কে যেতে হয় অনেককে। বিশেষ করে নারী ও শিশুরা বিপাকে পড়ে বেশি। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,টাঙ্গুয়ার হাওর ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন এলাকায় একটি গণশৌচাগার রয়েছে যাহা ব্যবহারে অনুপযোগী।আর পর্যটকবাহী নৌযানের টয়লেট গুলোতে পয়োনিষ্কাশনের ছিটেফোঁটাও নেই।কেউ মলত্যাগ করলেই তা সরাসরি পড়ছে নদী কিংবা হাওরের পানিতে। সে মল ভাসতে ভাসতে ছড়িয়ে পড়ছে নদী কিংবা হাওরের পাড়গুলোতে।আর বেশিরভাগ পর্যটকবাহী নৌযান পর্যটকদের ব্যবহারের জন্য যে পানি সংরক্ষণ করে থাকেন তাও সংরক্ষণ করছেন ওই একই নদী থেকে। মোটর বা বালতি ব্যবহার করে তোলা হচ্ছে পানি।তাতেই পর্যটকরা ধুয়ে নিচ্ছেন হাত-পা মুখ।পর্যটকসহ নৌচালকরাও নিয়মিত ওই পানিতে এসেই আনন্দ উল্লাসে করছেন গোসল।

এছাড়াও নদী ও হাওর পাড়ে যারা থাকেন,তাদের পরিচ্ছন্নতার কাজে হাওর ও নদীই ভরসা।আর এই দূষিত পানিতেই গোসল,আসবাপত্র কাপড় ধোয়াপোঁছা করেন থাকেন প্রতিনিয়ত।

টাঙ্গুয়ার হাওর এলাকার পাটলাই নদীর পাড়ের জয়পুর গ্রামের বাসিন্দা কপিলনুর মিয়া বলেন আমাদের এই ভাটি অঞ্চল কে শতভাগ স্যানিটেশনের আওতায় নিয়ে আসতে আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি।আমাদের এলাকায় এখন আর খোলা টয়লেট নেই বললেই চলে।কিন্তু এই আধুনিক সভ্যতার যুগেও একটি পরিবেশ বান্ধব পর্যটন এলাকায় সরাসরি নদীতে মলত্যাগ করে পরিবেশ দূষণ করছে যেখানে আমাদের স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে এ ব্যাপারে সরকারের কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।এমনিতেই আমরা যে আয় রোজকার হয় তা দিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছি, তারমধ্যে বিভিন্ন অসুখবিসুখ লেগেই আছে।এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় কোন ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান তিনি।

মানুষের জলমিশ্রিত পানি ব্যবহারে শরীরে প্রবেশ করতে পারে মারাত্মক জীবাণু, যা থেকে দেখা দিতে পারে সংক্রমিত রোগ।এমনটাই জানালেন টাঙ্গুয়ার হাওরে ঘুরতে আসা চর্ম ও যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ ডা.সালেহ আহমদ।উনি বলেন মল দ্বারা দূষিত নদী ও হাওরের পানি ব্যবহারে এই হাওরাঞ্চলে বসবাসরত মানুষের মধ্যে শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।

এ ব্যাপারে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজা বলেন হাওরের পরিবেশের ক্ষতি হউক ও হাওর পাড়ের মানুষের স্বাস্থ্যঝুঁকি হউক এমন কার্যক্রম মোটেও কাম্যনয়।এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ রইলো।

Previous articleলক্ষ্মীপুরে ছুরিকাঘাতে বৃদ্ধ খুন, যুবক আটক
Next articleউল্লাপাড়ার ভেংড়ীর গাঁতায় আট জন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।