সাহারুল হক সাচ্চু: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় মাঠের কাজে আট জন গ্রামীণ মজুরের দলটির গৃহস্থদের কাছে চাহিদা দিন যেতেই আরো বাড়ছে। এরা সবাই উপজেলার পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের ভেংড়ী গ্রামের বসতি। এদের মজুরীতে দিনের আয় আট থেকে নয়শো টাকা বলে জানা গেছে ।

উল্লাপাড়া উপজেলার ভেংড়ী গ্রামের একজন বাদে বাকী সাত জন মজুরের বয়স পঁচিশ থেকে চল্লিশ বছরের মধ্যে হবে বলে জানানো হয়। বাকী একজনের বয়স প্রায় পঞ্চান্ন হবে । এরা সবাই মাঠের কাজে মজুরী বিক্রি করে থাকেন। বছর চারেক হলো দলবেধে কাজ করছেন। গ্রামের অনেকেই একে গাঁতা বেধে কাজ করা বলে। এ দলে আছেন হাশেম মিয়া, আরমান। এরা চুক্তিতে মাঠের কাজে মজুরী বিক্রি করেন। বোরো ( ইরি) ধান ও রোপা আমন ধানের আবাদ মওসুমে এদের চাহিদা গৃহস্থদের কাছে বেশী হয়। এখন অনেক মাঠে রোপা আমন ধানের চারা লাগানো হচ্ছে । এদের চাহিদা বেড়েছে। এক বিঘা জমিতে রোপা আমন ধানের চারা লাগাতে এরা আটশো পঁচিশ টাকা নিচ্ছেন বলে জানানো হয়। দিনের ভোরবেলা থেকে টানা আট ঘণ্টা কাজ করেন। দলের একজনের দিনের আয় এখন আট থেকে নয়শো টাকা বলে জানানো হয় । ভেংড়ী গ্রামের আশে আশেপাশের নাগরৌহা , ফলিয়া, চড়ুইমুরীসহ আরো ক্#৩৯;টি গ্রামের বড় ছোটো গৃহস্থ পরিবারগুলোর কাছে এদের কাজের সুনাম রয়েছে। নিজ ভেংড়ী গ্রাম থেকে ছোটো বাখুয়া গ্রামের মাঠে রোপা আমন ধানের চারা জমিতে লাগাতে যাওয়াকালে প্রতিবেদকের সাথে দলটির দেখা হয়। দলের হাশেম মিয়া জানান গত দিন তিনেক হলো মাঠটিতে ধান চারা লাগানোর কাজ করছেন। বিঘা প্রতি আটশো পঁচিশ টাকা চুক্তি করে নিয়েছেন। বোরো ধান আবাদ মওসুমে টানা প্রায় এক মাস একেবার ভোর থেকে সন্ধ্যা অবধি জমিতে চারা লাগানোর কাজ করেন। সে সময় দিনের মজুরীতে এখনকার চেয়ে বেশী টাকা আয় হয়। গৃহস্থ কৃষক করিম মিয়া প্রতিবেদককে বলেন রোপা আমন ও বোরো ধানের আবাদে তিনি ভেংড়ী গ্রামের দলটিকে দিয়েই মাঠের জমিতে ধান চারা লাগানোর কাজ করান। এরা দায়িত্ব আর সঠিক নিয়মেই কাজ করেন।

Previous articleটাঙ্গুয়ার হাওর এলাকায় পর্যটকদের মলত্যাগে দুষিত হচ্ছে নদী ও হাওরের পানি, রয়েছে স্বাস্থ্যঝুঁকি
Next articleঅনুপ্রবেশের দায়ে ৫৮ মাস কারাভোগ শেষে দেশে ফিরেগেলেন ভারতীয় নাগরিক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।