তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে চা দোকানের পাওয়া টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে রশিদ আখন (৭০) নামে এক বৃদ্ধ কৃষককে পিটিয়ে জখম করেছে জহির আখন (৩০) নামের এক বখাটে। আহত কৃষক রায়পুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

এঘটনায় বিকালে রায়পুর থানায় মামলার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের ছেলে চা দোকানি আলআমিন জানান। ঘটনাটি ঘটেছে, শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার দক্ষিন চরবংশি ইউপির চরকাছিয়া গ্রামের বটতলি এলাকায়।

আহত কৃষক রশিদ আখন চারকাছিয়া গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিন আহাম্মদের ছেলে। অভিযুক্ত জহির একই গ্রামের রহিম আখনের ছেলে।

আহত রশিদ আখন বলেন, মোল্লারহাটের বটতলি এলাকায় তাদের ১টি চা দোকান রয়েছে। গত এক মাস আগে তার ছেলে চা দোকানদার আলআমিনের কাছ থেকে বাকিতে ১৫’শ টাকা নেয় এবং হাওলাত হিসেবে ৫ হাজার টাকা নেয় জহির। শনিবার সকালে জহির ঢাকা থেকে বাড়িতে এসে তাদের দোকানের সামনে আসে। এসময় পাওনা টাকা চাইতে গেলে আলআমিন ও তার বৃদ্ধ বাবা রশিদ আখনকে মারধরের হুমকি দেয় জহির। এঘটনার প্রায় ৮ মাস আগে জহিরের স্বজন স্থানীয় মেম্বার ফারুখ ও তার ছেলে রুবেলের কাছ থেকে ১৬ হাজার টাকা পাওনা নিয়ে রশিদ আখনসহ তার পরিবারের ৪ জন হামলার শিকার হলেও আজও তারা বিচার পায়নি। শনিবার দুপুরে মেম্বার ও তার ছেলে রুবেলের নির্দেশে বাড়িতে যাওয়ার সময় বৃদ্ধ রশিদকে হামলা করে পালিয়ে যায় জহির। এসময় স্থানীয় লোকজন রশিদ আখনকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। তার মাথায় তিনটি সেলাই দেয়া হয়েছে বলে ডাক্তার জানান।

এঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্য ফারুখ হোসেন বলেন, এঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানিনা। কোন লোক আমাকে জানায়নি। রশিদ আখনের সাথে আগে মারামারি হয়েছে, তা মিমাংসাও হয়েছে। অভিযুক্ত জহির পলাতক থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, এঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন ব্যাক্তি অভিযোগ করেনি। খোঁজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleপাবনায় প্রতিবন্ধীদের ক্ষুদ্র ঋণ প্রদানে ব্যাংক ও ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা
Next articleআগুন সন্ত্রাস প্রতিহতে ভুমিকা রাখারাই নেতৃত্বে আসবে: ড. হাছান মাহমুদ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।