এস কে রঞ্জন: পটুযাখালরী কলাপাড়া উপজেলার মিঠাগঞ্জ ইউনিয়ন এখন সন্ত্রাসীদের আস্থানা। খুন, ধর্ষন, চাদাবাজী, চুরি, জমি দখল, মাছের খামার দখল, সরকারি ত্রান ছিনিয়ে নেয়া, মাদক বিক্রি ও সেবন সহ বিভিন্ন অপরাধ মূলক কর্মকান্ড নিয়মিত চলছে।

সন্ত্রাসী রাজত্ব কায়েমে অন্যতম ভূমিকা পালন করে আসছে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের মিঠাগঞ্জ ইউনিয়ন সভাপতি মো.সোহাগ মুন্সি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন অন্যায় যে করবে সে যদি দলের নেতা কর্মীও হয় ছার দেওয়া হবেনা। অথচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিজের গড়া সংগঠন ”বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ” সোহাগ মুন্সি এই সংগঠনের নেতা হয়ে দলের প্রভাব খাটিয়ে নানা অপকর্ম ও সাধারন মানুষ কে হয়রানি করে আসছে। তার এই কর্মকান্ডে দলীয় ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে দাবি করেছেন এলাকাবাসী। মিঠাগঞ্জ ইউপি সদস্য মো.মোশারফ মুন্সি এক অভিযোগে বলেন, সোহাগ মুন্সি একজন সন্ত্রাসী ও খারাপ প্রকৃতির লোক, বিভিন্ন ধরনের অপরাধ মূলক কর্মকান্ড করা তার নেশা ও পেশা। গায়ের জোড় এবং দলীয় প্রভাব খাটিয়ে ইউনিয়নে চাদাঁবাজি, অন্যের জমি দখল, জোর করে পুকুরের মাছ লুট করা, গরীবের ত্রান ছিনিয়ে নেওয়া, মাদক বিক্রিসহ বিভিন্ন অপরাধ করা তার নিত্য দিনের কাজ। স্থানীয় নীরিহ মানুষের কাছ থেকে কৌশলে টাকা হাতিয়ে নেয় তিনি, ৩নং ওয়ার্ড বাসিন্দা মরিয়ম বেগমের কাছে এক লক্ষ টাকা চাঁদা চাইলে মরিয়ম বেগম বাদি হয়ে কলাপাড়া বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে সোহাগ মুন্সিকে প্রধান আসামি করে চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করে। এছাড়া তাহার বিরুদ্ধে কলাপাড়া থানায় একাধিক অভিযোগ এবং কলাপাড়া বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে বেশ কয়েকটি মামলা চলমান রয়েছে। এক বছর পূর্বে সে একটি মামলায় সাত দিন হাজত বাস করে। তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে বিভিন্ন কৌশলে তাকে হয়রানি করে তাই তার বাহিনীর বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করে না। আমি প্রতিবাদ করলে সোহাগ মুন্সির সন্ত্রসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমার বড়িতে হামলা করে এবং জোর করে আমার পুকুরের মাছ লুট করে নিয়ে যায়। তার অপকর্মের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলেও কলাপাড়া উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতারা কোন কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। দ্রুত তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিয়ে দলের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখার দাবি জানান মিঠাগঞ্জ ইউনিয়ন বাসী। গত ২২ সেপ্টেম্বর সোহাগ মুন্সি সাংবাদিকদের মিথ্যে তথ্য দিলে বিভিন্ন পত্রিকায় একটি সংবাদ প্রকাশিত হয় যেখানে আমাকে জামাতের সদস্য বলা হয়। আমি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মিঠাগঞ্জ ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের ৭২ নং সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মিঠাগঞ্জ ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে ২০১৮ সালের গত ৩০ এপ্রিল সফল ইউপি সদস্য হিসাবে আমাকে গণসংবর্ধনা এবং সন্মাননা প্রদান করা হয়। আমি কখনো জামাতের সাথে জড়িত ছিলাম না। মো.সোহাগ মুন্সি বলেন, আমি এধরনের কাজের সাথে যুক্ত নই আমার কোন বাহিনী নেই। মিঠাগঞ্জ ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মো.আবুবকর বলেন, ইউপি সদস্য মো.মোশারফ মুন্সি একজন ভাল মানুষ, তিনি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের একজন সদস্য জামায়েত ইসলামের সাথে তার কোন সম্পৃক্ততা নেই। সোহাগ মুন্সির সাথে তাদের জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। মিঠাগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং ইউপি চেয়ারম্যান হেমায়েত উদ্দিন হিরন বলেন, ওই এলাকা সোহাগ মুন্সি এবং মোশারফ মুন্সির মধ্যে জমিনিয়ে বিরোধ চলছে যা নিয়ে বর্তমানে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে।

Previous articleরায়পুরে বৃদ্ধকে পিটিয়ে জখমের মামলা তুলে নিতে যুবলীগ নেতার হুমকি
Next articleরাজাপুরে স্কুলের জমি উদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।