জয়নাল আবেদীন: রংপুরে টানা বর্ষনে কিছু এলাকা বাদে নগরীর সমস্ত এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। রাস্তাঘাট, অলিগলি, বাসাবাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। শ্যামা সুন্দরী ও কেডি ক্যানেল উপচে গেছে , পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে বেশ কিছু ব্যস্ততম সড়ক ও নিম্নাঞ্চলে হাঁটু পরিমান পানি জমেছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, নগরীর প্রধানসহ বেশিরভাগ সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। নগরীর বাবু খাঁ, কামার পাড়া, জুম্ম্পাড়া, কেরানী পাড়া, আলমনগর, হনুমান তলা, মুন্সিপাড়া, গনেশপুর, বাবুখা, কামারপাড়া, বাস টার্মিনাল, নগরীর শালবন, মিস্ত্রিপাড়া, কামাল কাছনা মাহিগজ্ঞ, কলাবাড়ি দর্শনা, মর্ডান মোড় ও খটখটিয়াসহ অন্তত ৫০/৬০টি মহল্লার বাড়িঘরে পানি ঢুকে পড়েছে। রংপুর আবহাওয়া অফিস বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে রংপুরে ২শ৬৫ মিলিমিটার। এর মধ্যে শুধু রাতের ৭ ঘণ্টার বৃষ্টি হয়েছে ২শ২২ মিলিমিটার । গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর ৩শ৪৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছিল। যা ছিল ১০০ বছরের রেকর্ড বৃষ্টিপাত। এদিকে রাস্তাঘাট-দোকানপাট ও ঘরে পানি উঠায় মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে। অনেক রাস্তায় যান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। সৃষ্ট জলাবদ্ধতা নিরসনে সিটি করপোরেশনের কার্যকর কোনো উদ্যোগ চোখে পড়েনি।তবে মেয়র মোস্তফা প্রতিটি ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে নির্দেশ দিয়েছেন কিভাবে নগরবাসীকে সেবা দেয়া যায় । নগরবাসীর অভিযোগ, নগরির বুক চিরে বয়ে যাওয়া ১৬ কিলোমিটারের শ্যামা সুন্দরী ক্যানেল ঠিকমতো ড্রেজিং না করা সহ অনুন্নত ড্রেনেজ ব্যবস্থার কারণে একটু ভারী বৃষ্টিপাত হলেই পানি উপচে লোকালয়ে প্রবেশ করছে। অথচ ইতিপূবে এই ক্যানেল সংস্কারের জন্য ২৫ কোটি বরাদ্দ পাওয়া টাকা হরিলুট হয়েছে । সেই তদন্তের মুখ আজো কেউ দেখতে পায়নি । কামাল কাছনা এলাকার আব্দুর রহিম জানিয়েছেন, দেশের উঁচু এলাকা গুলোর অন্যতম রংপুর। তিস্তা নদী প্রায় কুড়ি কিলোমিটার দূওে । ঘাঘট নদ খানিক দূরে থাকলেও শহরে পানি ওঠে না, কিন্তু গেল বছর হঠাৎ অবিরাম বৃষ্টিতে শহরে বন্যা হলো। এবারও একই অবস্থা। শহরের মধ্যে শ্যামা সুন্দরী খাল আর কেডি খাল আছে। এই দুটি খাল সংস্কার না করায় এই অবস্থা হচ্ছে। নগরীর সেনপাড়া এলাকার মেজবাহুল মোকাররবিন জানান, রোববার রাত থেকে টানা বৃষ্টিতে তার বাড়ি সংলগ্ন শ্যামা সুন্দরী এখন পানিতে টইটুম্বর। বৃষ্টির পানি তাদের ঘরে ঢুকে পড়ায় আসবাবপত্র অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। একই অবস্থা তার বাড়ির আশপাশেও।

নগরীর বাবুঁখা এলাকার আহসান জানান, পানি নিষ্কাশনের জন্য এখনও পর্যাপ্ত ড্রেন তৈরি হয়নি। পাড়া-মহল্লার ছোট ছোট খালগুলো ভরাট আর দখলদারিত্বের কবলে পড়ায় বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতা অনিবার্য হয়ে উঠছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই বাড়ির আশপাশসহ নগরীর অধিকাংশ নিচু এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে।

Previous articleমাদারীপুরের কালকিনিতে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে অবৈধ কারেন্ট জাল
Next articleবাউফলে ফিল্মিস্টাইলে যুবককে তুলে নিয়ে পিটিয়ে জখম
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।