তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে আওয়ামীলীগ থেকে অব্যাহতি প্রাপ্ত ৫ নেতা চলতি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক পেতে চেষ্টা-তদবির করে যাচ্ছেন। ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় তাঁদেরকে জেলা আওয়ামীলীগ দল থেকে অব্যাহতি দিয়েছিল।

এছাড়াও বহিস্কৃত আরো ১৪ নেতাদের মধ্যে অধিকাংশই ইউপি সদস্য পদে দলের আনুকূল্য পেতে দৌঁড়ঝাপ করে যাচ্ছেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক হাজী ইসমাইল খোকন’র ২০১৯ সনের ২৬ আগষ্ট স্বাক্ষরিত এমন একটি চিঠির কপি এখন ফেসবুকে স্থানীয় নেতাকর্মীদের টাইমলাইনে প্রচারিত হচ্ছে। এ নিয়ে চলছে যুক্তি, পাল্টা যুক্তি ও ক্ষোভ প্রকাশ। ওই ভোটে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ নৌকা প্রতীকে ভোট করে বিজয়ী হয়েছিলেন। পরাজিত হয়েছিলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উত্তর চরবংশী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বহিস্কৃত সভাপতি আলতাফ হোসেন হাওলাদার।

অব্যাহতি প্রাপ্তরা হলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাফর উল্লাহ দুলাল হাওলাদার। উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইনিয়ন আওয়ামীলীগের সদস্য আবুল হোসেন হাওলাদার, দক্ষিণ চর আবাবিল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কামাল সাহাজী, দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর সালেহ মোঃ মিন্টু ফরায়েজী, ওই ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন মোল্লা, বামনী ইউনিয়নের সদস্য ও ইউপি মেম্বার জাকির হোসেন পাটওয়ারী। অপরদিকে, একই চিঠিতে দলের বিভিন্ন পদের আরো ১৪ জনকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল। তাঁদের মধ্যে অনেকেই এবার দলীয় আনুকূল্যে ইউপি সদস্য প্রার্থী হতে চাচ্ছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দুলাল হাওলাদার উত্তর চর আবাবিল ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নৌকা পেতে চাচ্ছেন। উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল হোসেন হাওলাদার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাচনে নৌকার সাথে বিদ্রোহী প্রার্থী আলতাফ হোসেন হাওলাদারের ছোট ভাই। তিনিও আবার নৌকা প্রতীক চাচ্ছেন। কামাল সাহাজী উপজেলা নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করেছেন। কিন্তু এবার তিনি নিজেই দক্ষিণ চর আবাবিল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীক পেতে চেষ্টা করছেন। দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মিন্টু ফরায়েজী উপজেলা ভোটের সময় নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করলেও তিনি নিজেই আবারও নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চাচ্ছেন। বামনী ইউনিয়নের বর্তমান ইউপি সদস্য জাকির হোসেন পাটওয়ারী নৌকার বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করলেও এবার নিজেই ওই ইউনিয়নে নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চাচ্ছেন। জাফর উল্লাহ দুলাল হাওলাদার, আবু জাফর সালেহ মোঃ মিন্টু ফরায়েজী, আবুল হোসেন হাওলাদার, জাকির হোসেন পাটওয়ারী বলেন, অব্যাহতির কোনো চিঠি আমরা পাইনি। বরং আগের মতোই দলীয় কাজকর্মে জড়িত রয়েছি। দলের উপজেলা কমিটি থেকেও বিভিন্ন কার্যক্রমে দাওয়াত দেওয়া হচ্ছে। ভোটকে কেন্দ্র করে একটি মহল আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। যেখানে বিদ্রোহী প্রার্থীকে ক্ষমা করে দেওয়া হয়েছে, সেখানে আমাদেরকে জড়িয়ে এখন এ ধরণের প্রশ্ন ওঠা ষড়যন্ত্রমূলক। রায়পুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মামুনুর রশিদ বলেন, দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত এবং জেলা আওয়ামীলীগের নির্দেশনা মোতাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগ তাদেরকে নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করায় বহিস্কার করেন। সেই সিদ্ধান্ত এখনো প্রত্যাহার করা হয়নি। এছাড়ার যাঁরা দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিভিন্ন সময়ে বিদ্রোহী হয়েছেন তাদেরকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রে নাম না পাঠানোর বিষয়েও দলের সাধারণ সম্পাদক মহোদয়ের নির্দেশনা রয়েছে। লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাংসদ অ্যাডভোকেট নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি আলতাফ হাওলাদারকে ক্ষমা করে দিয়েছেন। অন্যদের বিষয়ে কেন্দই যে সিদ্ধান্ত দিবেন তা পালন করবে জেলা ও উপজেলা আওয়ামীগের নেতৃবৃন্দ। জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিয়া মোঃ গোলাম ফারুক পিংকু বলেন, বিদ্রোহীদের বহিস্কারের বিষয়টি আমরা অবগত আছি। অতীতে যারা নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করেছেন তাঁেদর নাম কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডে না পাঠানোর নির্দেশনা রয়েছে।

Previous articleকলাপাড়ায় অধিগ্রহনকৃত জমির মূল্য বারিয়ে দেয়ার কথা বলে ব্ল্যাঙ্ক চেক ও স্ট্যাম্প নিয়ে হযরানি
Next articleপীরগাছায় পাঁচটিতে আ’লীগ, দুটিতে বিএনপি ও একটিতে জাপা’র বিদ্রোহী প্রার্থী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।