আরিফুর রহমান: স্বতন্ত্র প্রার্থী হাফিজুর রহমান মিলন নির্বাচন বানচাল করার জন্য বিভিন্নভাবে অসত্য, অভদ্র, কটুক্তি ও কুরুচিপূর্ণ মানহানিরক অপপ্রচার করছে বলে করে অভিযোগ করেছে মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার ২য় ধাপের আলীনগর ইউপি নির্বাচনের আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব সাহীদ পারভেজ হাওলাদার।

সোমবার বিকালে আলীনগর ইউনিয়নের কালিগঞ্চ বাজরের যুবলীগ ইউনিয়ন কার্যালয় সংবাদ সম্মেলন করে একথা বলেন। নৌকা প্রার্থী সাহীদ জানান, আগামী ১১ই নভেম্বর আলীনগর বাসীর বহুল প্রত্যাশিত ও কাঙিখত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। যার মাধ্যমে আলীনগর বাসী তাহাদের সেবক নির্বাচন করবেন-ইচ্ছা মতো স্বাধীনভাবে ভোট প্রয়েগের মাধ্যমে। আমি সেই নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রির মনোনিত একজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রির বিরুদ্ধে যাহারা অবস্থান গ্রহন করবে, দলের সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে দলের বিরুদ্ধে অবস্থান নিবে, তিনি তো মাননীয় প্রধানমন্ত্রির চিহ্নিত শত্রু, দলের শত্রু, রাষ্ট্রের শত্রু, সর্বপরি আপনার-আমার তথা আপামার জনগনের শত্রু। সেই ঘৃনিত জাতীয় শত্রু আসন্ন নির্বাচনে তাহার নিশ্চিত ভরাডুবি আঁচ করতে পেরে ঘরে বসে পাগলের প্রলাপ বকছে এবং সাংবাদিক সম্মেলন করে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার চেষ্টা করছে। প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য এমন কোন ঘৃন্য অপতৎপরতা নাই যা সে করে নাই। আপনারা জানেন, ডাসার ইউনিয়নে মারামারি হয়েছে এবং বেশকিছু দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র পুলিশ উদ্ধার করেছে। যাহার ছবি মিডিয়ায় প্রকাশ পেয়েছে। উক্ত ছবিটি কাটিং করে, ডুপ্লিমেসি করে আমার নামে আমার অস্ত্র বলে সে সাংবাদিক সম্মেলনে প্রকাশ করেছে। তার এই ঘৃণিত কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে সার্ভার আইনে মামলাও হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি তাহার সম্পর্কে কোন কুৎসা রটাতে চাই না, তবে আপনাদের মাধ্যমে জনগনের কাছে তথা জাতির কাছে তাহার ও তাহার পরিবারের সামান্য বায়োডাটা তুলে ধরতে চাই। এই অহংকারী মিলন সরদারের মরহুম আব্বাজান আবুল হাসেম সরদার ছিলেন ১৯৭১ সালের পাক বাহিনীর পা-চাটা গোলাম, মুসলিম লীগের দালাল এবং পিচ্ধসঢ়; কমিটির চেয়ারম্যান। তাহার দেওয়া তথ্য মতে আলীনগর, এনায়েত নগর, লক্ষ্মীপুর এবং ঝাউদি ইউনিয়নের মুক্তিকামী মানুষদের পাক হানাদার বাহীনি এবং রাজাকার, আল বদর বাহিনি সম্মিলিতভাবে মুক্তিকামী মানুষদের হয়রানী, নির্যাতন এবং হত্যা করেছে। একদিকে পাকসেনা, অপরদিকে তারই গুনধর জেষ্ঠ্যপুত্র, মিলন সরদারের বড়ভাই ইউনুস সরদার মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন না করে গঠন করেন নকশাল বাহিনী। স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন অবস্থায় এলাকার মুক্তিকামী জনতা আতঙ্কিত থাকতেন একদিকে পাকসেনা অন্যদিকে নকশাল বাহিনী। হাসেম সরদারের দেওয়া তালিকা মতে পাকসেনারা হত্যা করেছে- ফাসিয়াতলা হাটে কালিগঞ্জের সুধীর শাহ, কালীনগরের নরেন দাস, সুশীল দাস ও রনজিৎ শীল সহ আরও নাম না জানা অনেককে। পোড়ানো হয় ঐতিহ্যবাহী ফাসিয়াতলা হাট।

এবার মিলন সরদারের জেষ্ঠ্য ভ্রাতার সামান্য কিছু কৃত্তি বলছি। স্বাধীনতার যুদ্ধে অংশগ্রহন না করে এলাকায় গড়ে তুললেন এ জনপদের ত্রাস সৃষ্টিকারী পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টি তথা নকশাল বাহিনী। এ বাহিনীর নেতৃত্বে বাবাধন মরহুম হাসেম সরদারের দেওয়া তালিকা মোতাবেক ইউনুস বাহিনী হত্যা করেন রামনগরের আছমত আলী সরদার এবং মালেক সরদার-কে। সস্তাল গ্রামের লাল শরীফ মোল্লা এবং মাদ্রার মজিদ হাওলাদার ও ফাসিয়াতলার আমজেদ হাওলাদার কে নির্মমভাবে জীবন দিতে হয় প্রকাশ্য দিবালোকে। মরহুম ইউনুস সরদার এতেই থেমে থাকেননি। আলী নগরের ভাগ্যবিধাতা নির্বাচিত হয়ে হত্যা করেন জাহেদ আলী ও মধুকে এবং উপজেলা নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে হত্যা করেন টুমচর- এর ওয়াজেদ হাওলাদারকে। ইউনুস সরদারের পেটোয়া বাহিনীর নির্মম আঘাতে আহত হন প্রতিপক্ষ জনপ্রিয় নেতা মরহুম আব্দুল মন্নান সফেল হাওলাদার। তাকে ভোট কেন্দ্র থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় পুলিশ উদ্ধার করে বরিশাল হাসপাতালে পাঠায়। এছাড়াও চাপাতি ও হকিষ্টিক দিয়ে পায়ের নলা ভেঙ্গে দেওয়া হয় সোনা মিয়া হাওলাদার এবং এনামুল হক বাচ্চু হাওলাদারকে। আর এ সমস্ত সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঘটাতেন বড় ভাই ইউনুস সরদারের নির্দেশে আজকের আলোচিত হাফিজুর রহমান মিলন সরদার নিজেই। তাহাদের ঔদ্ধ্যত্তের কাহিনী বলে শেষ করা যাবে না। ইউনিয়ন পরিষদকে তাদের মানদাতার মৌরশি সম্পত্তি ভেবে ক্ষমতাকে কুক্ষিত করার জন্য এমন কোন ঘটনা নেই যা না ঘটায়। খুন, মারামরি, রাহাজানি সহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড এই পরিবার ঘটায়। যার থেকে এলাকার মানুষ আজ মুক্তি চায়, শান্তি চায় তাই কালীনগর বাসী ঐক্যবদ্ধ হয়েছে সন্ত্রাসীর হাত থেকে, জুলুম বাজের হাত থেকে, জুলুম বাজের হাত থেকে ইউনিয়ন পরিষদ-কে উদ্ধার করে একজন শান্তি প্রিয় মানুষের হাতে অর্পণ করবে।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমি তাদের কর্মকান্ড সর্ম্পকে বেশিকিছু বলতে চাইনা তবে কালকিনি থানায় এখনও দালাল আইনে মামলা আছে পিতা মরহুম হাসেম সরদার, বড়ভাই ইউনুস সরদার এবং ভগ্নিপতি মজিবুর রহমান মন্টুর নামে। মাদারীপুরের ইতিহাস গবেষক বেনজির আহম্মেদের লেখা “মুক্তিযুদ্ধে মাদারীপুরের ইতিহাস” নামক বইতে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে। আর কোন কাসুন্দি ঘাটতে চাই না। বললে কথা অনেক বলা যায়। আপনারা রাষ্ট্রের বিবেক, সমাজের দর্পণ,সময়ের চোখ। আপনারা জাতির বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর। আপনাদের ক্ষুরধর মসির শক্তিতে সত্য উদঘাটিত হবে, ন্যায় প্রতিষ্ঠিত হবে।

Previous articleসোনারগাঁওয়ে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থীর বাড়িতে হামলা
Next articleক্রিকেটার মোশাররফ রুবেলের অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।