বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দীর্ঘ সাড়ে ৭ মাস পরে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) থেকে পরীক্ষামূলক পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইনকে পর্যটক পরিবহনের পাশাপাশি চলাচলের অনুমতি দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো: আবু সুফিয়ান। তিনি জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সকাল থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন পরীক্ষামূলক চলাচল করবে। পর্যটকদের নিরাপত্তা ও জেটির মেরামত কাজ পর্যবেক্ষণ করার পরে পর্যায়ক্রমে অবস্থা বুঝে অপরাপর জাহাজগুলোকে অনুমতি দেয়া হবে। পর্যায়ক্রমে সব জাহাজকে চলাচলের পাশাপাশি পর্যটক পরিবহনের অনুমতি দেয়া হবে।

কেয়ারি ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলসের কক্সবাজার অফিসের কর্মকর্তা মো: আনোয়ার হোসাইন বলেন, ‘জেলা প্রশাসকের ছাড়পত্র পেয়েছি। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে মঙ্গলবার থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল শুরু করবে। অবশ্য বিআইডব্লিউটিএ ও নৌপরিবহন দপ্তরের ছাড়পত্র আগেই পেয়েছি। এখন থেকে সেন্টমার্টিনে ভ্রমণে আগ্রহীরা জাহাজের টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। তবে মঙ্গলবারের সব টিকিট বুকিং হয়ে গেছে। পর্যটকরা আসলেও আর টিকিট দিতে পারছি না।’

মহামারি করোনা, প্রতিকূল আবহাওয়া ও সেন্টমার্টিন জেটি চলাচল অনুপযোগীর কারণে দীর্ঘদিন নিয়মিত পর্যটকবাহী জাহাজ সেন্টমার্টিন দ্বীপে যেতে পারেনি। যার কারণে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসা খাতে অনেক ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু প্রশাসন জাহাজ চলাচলের অনুমতি দেয়ায় সংশ্লিষ্টরা এখন দারুণ খুশি।

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, কিছুটা বিলম্বের মাধ্যমে এবারের পর্যটন মৌসুম শুরু হচ্ছে। পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ব্যবসায়ীরা তাদের আবাসিক হোটেল ও কটেজগুলো সাজিয়ে রাখছেন। জাহাজ চলাচলের খবরে দ্বীপের মানুষের পাশাপাশি সকল শ্রেণিপেশার মানুষের মাঝে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। এতে এখানকার সাড়ে ১০ হাজার বাসিন্দার মুখে হাসি ফুটে উঠেছে।

আরেক পর্যটক ইলিয়াছ বলেন, জাহাজ চলাচলের খবরে খুবই খুশি হলাম। দ্রুত এসে টিকিট করলাম, মঙ্গলবারই সেন্টমার্টিন দ্বীপে যাচ্ছি। পরিবার নিয়ে দুই দিন থেকে আবারও কক্সবাজার চলে আসব। তারপর ঢাকায় রওনা হব।

ট্যুর অপারেটরস এসোসিয়েশন অব কক্সবাজার (টুয়াক) সভাপতি আনোয়ার কামাল বলেন, ‘করোনা ও নানা সমস্যায় কক্সবাজারের ৫ শতাধিক ট্যুর অপারেটরদের লোকসানে দিন যাচ্ছে। কিন্তু টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচলের খবরে স্বস্তি ফিরেছে। এখন অন্ততপক্ষে ট্যুর অপারেটরদের কষ্টটা লাঘব হবে।’

সেন্টমার্টিনের সী-প্রবাল হোটেলের মালিক আবদুল মালেক বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকায় ব্যবসায় ধস নেমেছে। মঙ্গলবার থেকে সেন্টমার্টিনে পর্যটক আসার সুখবর পাচ্ছি। পর্যটকদের জন্য হোটেল সাজিয়ে রেখেছি। সার্বক্ষণিক সেবা নিশ্চিত করে প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিনে পর্যটকদের স্বাগত জানাচ্ছি।’

সেন্টমার্টিন ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান বলেন, ‘জাহাজ চলাচলের খবরে দ্বীপে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে। তবে পর্যটন মৌসুমের অনেক সময় পেরিয়ে গেছে। করোনায় অনেক ক্ষতি হয়েছে পর্যটন ব্যবসায়ীদের। এখন ক্ষতিটা পুষিয়ে উঠার চেষ্টা করবেন তারা।’

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার থেকে সেন্টমার্টিনে জাহাজ চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়েছে। ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহন না করতে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জাহাজ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এরপরও উপজেলা প্রশাসন নিয়মিত বিষয়টি তদারকি করবে।

উল্লেখ্য, সাগর উত্তাল হওয়ার পাশাপাশি কালবৈশাখীর আশঙ্কায় দুর্ঘটনা এড়াতে চলতি বছরের ৩১ মার্চ থেকে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন ও সেন্ট মার্টিন-কক্সবাজার দুটি নৌপথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দেয় স্থানীয় জেলা প্রশাসন। ওই সময় এ দুটি নৌপথে ১০টি জাহাজ চলাচল করছিল। এর মধ্যে ২৬ মে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে পর্যটক ওঠানামার জেটি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জেলা প্রশাসনের একটি প্রতিনিধিদল জেটির মেরামতকাজ সরেজমিন পরিদর্শন ও তদারকির পাশাপাশি লোহার পাটাতন বসানোর ফলে এত দিন ধরে পর্যটকবাহী জাহাজগুলোকে ওই পথে চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়নি।

Previous articleরংপুরে শিক্ষার্থীদের টিকাদান কর্মসূচি শুরু
Next articleকেন্দুয়ায় ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী পরিবর্তনের দাবী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।