বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে আগুনের ঘটনায় ছয় বছরের ছেলে জুবায়ের এর পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলেন তার বাবা মকবুল হোসেন (৪০)।

বুধবার দুপুরে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

নিয়তের চাচা মমিনুল ইসলাম মুকুলের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি উপজেলার শরীফপুর ইউনিয়নের সফর মিয়ার ছেলে।

এর আগে মঙ্গলবার রাত সোয়া ১০টার দিকে উপজেলা সদরের শরীয়তনগর এলাকায় আগুনের ঘটনা ঘটে।

এ সময় নিহত মকবুল হোসেনের ছেলে জুবায়ের (৬) অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। এ ঘটনায় মকবুল হোসেন (৪০) ও তার স্ত্রী রেখা বেগম (৩২) এবং তাদের আরেক ছেলে জয় (১২) ও ভবনের বাসিন্দা জামিয়া রহমান দগ্ধ হয়েছেন। তাদেরকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাতে শরীয়তনগর এলাকায় স্থানীয় মোহাম্মদ আলাই মিয়ার পাঁচতলা বাড়ির নিচতলার ভাড়া থাকতেন মকবুল হোসেন ও তার পরিবার। রাত সোয়া ১০টার দিকে মকবুলের বড় ছেলে জয় মশার কয়েল ধরানোর জন্য দিয়াশলাই দিয়ে আগুন জ্বালায়। এ সময় কিছু বোঝার আগেই আগুন পুরো ঘরে ছড়িয়ে যায়। মকবুল হোসেন তখন রাতের খাবার খেতে বসেছিল। অগ্নিকাণ্ডের ফলে বাসার বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায় অন্ধকারে দরজা খুজে না পাওয়ায় তারা বের হতে পারেনি। ফলে তারা বাসার ভেতরে তারা আটকে যায় ও অগ্নিদ্বদ্ধ হয়।

খবর পেয়ে আশুগঞ্জ, সরাইল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফায়ার সার্ভিসের চারটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

নিহতের চাচা মুমিনুল ইসলাম জানান, অগ্নি দগ্ধ হওয়ার পর রাতেই মকবুল হোসেন ও তার পরিবারের আরো দুই সদস্যকে ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার দুপুরে মকবুল হোসেন মৃত্যুবরণ করেন।

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আজাদ রহমান বলেন, মকবুল হোসেনের মৃত্যুর বিষয়টি আমরা শুনেছি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleসোনারগাঁওয়ের মেঘনা নদীতে অবৈধ মাছের ঘের উচ্ছেদ
Next article‘যে চেতনা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল, স্বাধীনতার ৫০ বছরেও সেই চেতনা আজও বাস্তবায়ন হয়নি’
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।