রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকলাপাড়ায় শিক্ষক সমিতি’র দু-পক্ষের বিরোধ চরমে

কলাপাড়ায় শিক্ষক সমিতি’র দু-পক্ষের বিরোধ চরমে

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র মধ্যকার বিরোধ এখন চরমে উঠেছে। দেশের সর্বোচ্চ আদালত একটি রায়ে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতিকে অবৈধ ঘোষণা করেন। অথচ আদালতের সে রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ওই নামেই কার্যক্রম পরিচালনা করছে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি কলাপাড়া উপজেলা শাখা। এমনই অভিযোগ করেন বাংলাদেশ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি কলাপাড়া উপজেলা শাখার সদস্যরা।

গত ৯ ডিসেম্বর বিকেলে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি’র অফিস ভাংচুর হয়। এতে উভয় পক্ষ একে অপরকে দোষারোপ করলে বিষয়টি স্থানীয় সচেতন মহলের নজরে আসে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সময়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সমন্বয়ে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি নামে একটি সংগঠন করা হয়। যাহার রেজি: নং ১৮০৮/৭৫-৬২-৬৩। কিন্তু দেশ স্বাধীন হলে সেসময়ের সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোকে সরকারি বিদ্যালয় হিসেবে ঘোষণা করা হয়। তাই ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি নামে আরেকটি সংগঠন রেজিষ্ট্রিভূক্ত হয়। যাহার রেজি: নং এস-১৫৩৬(৯৬)/৯৩। যে সংগঠনটি পূর্বের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি’র সদস্যসহ সকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে গঠিত হয়। ফলে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি ও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র মধ্যে দ্বন্দ ও বিরোধের সৃষ্টি হয়।

বিষয়টির সঠিক সুরাহার জন্য শেষ পর্যন্ত আদালতের দরজায় গিয়ে দাঁড়ায়। দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের এপিলেট ডিভিশন প্রাথমিক শিক্ষক সমিতিকে অবৈধ ঘোষণা করে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র পক্ষে একটি রায় ঘোষণা করেন। সুপ্রিম কোর্টের রায়ের মতে, “বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি’র নামে ১৯৬২-৬৩ সালের করা (রেজি: নং ১৮০৮/৭৫) নম্বরটির অধীনে তিনটি সমিতি কাজ করছে এবং সেজন্য উপরোক্ত নিবন্ধন নম্বরটি জাল ও নকল বলে মনে হচ্ছে।” রায় পরবর্তীতে দুই সংগঠনের সভাপতি ও সম্পাদকদের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি সম্পাদিত হয়।

বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি’র সকল স্থাবর- অস্থাবর সম্পত্তি ভোগদখল ও রক্ষনাবেক্ষনের দায়ভার বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি করবে এ মর্মে চুক্তিতে ঘোষনা করা হয়। অথচ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি কলাপাড়া উপজেলা শাখা’র কতিপয় স্বার্থান্বেষী সদস্য আদালতের রায় ও সম্পাদিত চুক্তিকে অবজ্ঞা ও অবহেলা করে ক্ষমতার জোড়ে ওই সংগঠনের নামেই কাজ পরিচালনা করছে। বিষয়টি নিয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র সদস্যরা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দিলেও সঠিক কোন সমাধান মিলছে না। বরং বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা, বানোয়াট ও সাজানো মামলা দিয়ে তাদের হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেন কলাপাড়া উপজেলা শাখা’র সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র একাধিক সদস্য।

বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি কলাপাড়া উপজেলা শাখা’র সভাপতি ও কলাপাড়া মঙ্গলসুখ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জাহাঙ্গির আলম বলেন, আদালতের রায় মোতাবেক প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি এখন সম্পূর্ণ অবৈধ একটি সংগঠন। বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি’র নামে কলাপাড়ায় যে অফিস ও সম্পত্তি রয়েছে আইন ও সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী তা এখন বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র সম্পত্তি। অথচ তারা অবৈধভাবে তা দখল করে রাখছে। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসসহ কয়েকটি দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন সমাধান পাইনি।

এবিষয়ে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি কলাপাড়া উপজেলা শাখা’র সাধারন সম্পাদক মাহমুদুল আলম পলাশ সাংবাদিকদের জানান, আমাদের বিরুদ্ধে কলাপাড়া মেজিস্ট্রেট কোর্টে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র পক্ষ থেকে একটি মামলা করা হয়েছে। আদালতের মাধ্যমেই এর জবাব দিবো। কলাপাড়া উপজেলা শিক্ষা অফিসার অচ্যুতানন্দ দাস বলেন, এবিষয়ে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি’র একটি অভিযোগ পেয়েছি। এটা সরকারি কোন বিষয় না। সমিতিগুলো তাদের নিজস্ব নিয়ম-নীতির মাধ্যমে চলে। তবে তারা উভয় পক্ষ বসলে আমি বিষয়টি দেখতে পারি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments