রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
Homeঅপরাধরাজশাহীতে ঘুষের টাকাসহ গ্রেফতার কর কর্মকর্তার জামিন নামঞ্জুর

রাজশাহীতে ঘুষের টাকাসহ গ্রেফতার কর কর্মকর্তার জামিন নামঞ্জুর

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঘুষের ১০ লাখ টাকাসহ গ্রেফতার রাজশাহী কর কমিশনার কার্যালয়ের সার্কেল-১৩-এর উপ-কর কমিশনার (বৈতনিক) মহিবুল ইসলাম ভুঁইয়ার জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত।

বুধবার সকালে মহিবুলকে রাজশাহী মুখ্য মহানগর দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হয়। পরে শুনানি শেষে বিচারক আল আসাদ আশিকুজ্জামান জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গ্রেফতার মহিবুল ইসলাম ভুঁইয়ার বাড়ি বাগেরহাটে। তিনি ২৫তম বিসিএসের কর ক্যাডারের কর্মকর্তা।

এর আগে গত মঙ্গলবার (৪ এপ্রিল) দুপুরে রাজশাহী কর ভবনে অভিযান চালিয়ে ঘুষের ১০ লাখ টাকাসহ মহিবুল ইসলাম ভুঁইয়াকে আটক করে দুদকের একটি দল। পরে দুদকের উপ-পরিচালক (ডিডি) আমিনুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে মামলা করেন। এই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

মহিবুলের জামিন নামঞ্জুরের বিষয়টি নিশ্চিত করে দুদকের আইনজীবী শহিদুল হক খোকন গণমাধ্যমকে বলেন, গ্রেফতার উপ-কর কমিশনার মহিবুল ইসলাম ভুঁইয়াকে বুধবার সকালে রাজশাহী মুখ্য মহানগর দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় মহিবুল ইসলামের আইনজীবীরা তার জামিন আবেদন করেন। দুদকের আইনজীবীরা মহিবুলের জামিনের বিরোধিতা করেন। দুইপক্ষের শুনানি শেষে রাজশাহী মুখ্য মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক আল আসাদ আশিকুজ্জামান তার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এদিকে, আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মিজানুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা মহিবুল ইসলামের জামিনের আবেদন করেছিলাম। তাকে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানো হয়েছে। বিচারক দুই পক্ষের শুনানি শেষে মহিবুলের জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। আমরা নথিপত্র পেলে উচ্চ আদালতে পুনরায় জামিনের আবেদন করবো।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, রাজশাহী নগরীর মাদারল্যান্ড ইনফার্টিলিটি সেন্টার ও হাসপাতালের সত্বাধিকারী ডা. ফাতেমা সিদ্দিকার নিষ্পত্তি হওয়া বেশকিছু কর রিটার্ন প্রতিবেদনে ২৬ কোটি টাকার সন্দেহজনক লেনদেন ও কর ফাঁকির অভিযোগে ফাইল পুনরায় চালু করেন গ্রেফতার উপ-কর কমিশনার মহিবুল ইসলাম ভুঁইয়া। ডা. ফাতেমার অতীতের আয়কর রিটার্ন ফাইলে গুরুতর অসঙ্গতির কারণে তার ওপর নতুন করে সাড়ে তিন কোটি টাকা কর নিরূপণের প্রক্রিয়া চলছিল। এর মধ্যে ফাইলগুলো জরিমানা ছাড়া নিষ্পত্তির জন্য উপ-কর কমিশনার মহিবুল ৬০ লাখ টাকা ঘুষ চেয়েছিলেন ওই চিকিৎসকের কাছে। ডা. ফাতেমা সিদ্দিকা ৫০ লাখ টাকা দিতে রাজি হয়ে গোপনে দুদকে মহিবুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। মঙ্গলবার সকালে ডা. ফাতেমা সিদ্দিকা ও তার স্বামী ইউসুফ ইসলাম উপ-কর কমিশনার মহিবুলের কক্ষে গিয়ে নগদ ১০ লাখ টাকা দেন। তারা মহিবুলের কক্ষ থেকে বের হওয়ার পরই দুদকের একটি টিম অভিযান চালায়। এ সময় ঘুষের ১০ লাখ টাকাসহ মহিবুল ইসলামকে হাতেনাতে আটক করেন দুদক কর্মকর্তারা। এ নিয়ে তখন দুদক ও কর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments