বাংলাদেশ ডেস্ক: ভারতের কলকাতার নিউটাউনে আবাসিক হোটেল থেকে চুমকি ঘোষ নামে এক তরুণীর মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া গেছে একটি চিরকুট। পুলিশের দাবি সেখানে খুনের কথা স্বীকার করেছে আততায়ী। এদিকে এই ঘটনার পর থেকে খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না ঐ নারীর পুরুষ সঙ্গীর।

নিহত নারীর পরিবারের পক্ষ থেকে জানা গেছে, ফেসবুকে এক যুবকের সঙ্গে আলাপ হয়েছিল চুমকি ঘোষের। তার কাছ থেকে চাকরির প্রতিশ্রুতি পেয়ে ঘর ছেড়েছিলেন মেদিনীপুরের এই গৃহবধূ। চাকরির আশায় সুদূর মেদিনীপুর থেকে এসেছিলেন কলকাতায়। পরে নিউটাউনের হোটেলে ওই তরুণীকে নৃশংসভাবে খুন করা হয়। হোটেল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

হোটেল কর্তৃপক্ষের দাবি, সোমবার দুপুরে চুমকি ঘোষ ও অমিত ঘোষ নামে দুই যুবক যুবতী হোটেলের ঘর নেয়। রেজিস্টারে পশ্চিম মেদিনীপুরের ঠিকানা দেওয়া ছিল। সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ ঘর ছেড়ে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, সাড়াশব্দ না পেয়ে রাত ১০টা নাগাদ ডুপ্লিকেট চাবি দিয়ে দরজা খোলেন হোটেল কর্মীরা। দেখেন ঘরে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছেন তরুণী।

পুলিশ আরো জানায়, হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গিয়েছে, সোমবার ৪টায় বেরিয়ে যান তরুণীর পুরুষ সঙ্গী। তারপর থেকেই আর খোঁজ মিলছে না তার।

পুলিশ জানিয়েছে, ঘর থেকে মিলেছে একটি কাগজের টুকরো। তাতে খুনের কথা কবুল করেছে আততায়ী।

খুনের কারণ নিয়ে ধোঁয়াশায় রয়েছে তরুণীর পরিজনরাও। মৃতের স্বামী বলেছেন, ফেসবুকে আলাপ। চাকরি দেবে বলে আনে। চুমকির বড় ভাইও একই কথা বলেছেন।

ঘটনাস্থল থেকে নমুনা সংগ্রহ করেছে ফরেন্সিক টিম। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে তরুণীকে। মৃতদেহে রয়েছে একাধিক আঘাতের চিহ্ন। পাশেই পড়ে ছিল মদের বোতল। হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে টেকনো সিটি থানার পুলিশ।