বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুরের মামলায় গ্রেফতার দুই ছাত্রের পাঁচ দিন ও দুই শিক্ষকের চার দিন রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) সকালে এ রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন কুষ্টিয়া চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

এর আগে সোমবার (৭ ডিসেম্বর) অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গ্রেফতার দুই ছাত্রের ১০ দিন এবং দুই মাদ্রাসাশিক্ষকের ৭ দিন করে রিমান্ড আবেদন করেন পুলিশ। আদালতের বিচারক মো. রেজাউল করিম মঙ্গলবার রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করেন।

এর আগে রোববার রাতে পৌরসভার সচিব কামাল উদ্দিন বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইন ১৫-এর ৩ ধারায় নাশকতা ও অন্তর্ঘাতমূলক অপরাধে তাদের আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ।

এ মামলায় যাদের গ্রেফতার দেখানো হয়েছে তারা হলেন: কুষ্টিয়া শহরের জুগিয়া পশ্চিমপাড়া ইবনে মাসউদ (র.) মাদ্রাসার ছাত্র আবু বক্কর (১৯) ও মো. সবুজ ইসলাম নাহিদ (২০) মাদ্রাসার দুই শিক্ষক মো. আলামিন (২৭) ও মো. ইউসুফ আলী।

রোববার (৬ ডিসেম্বর) বিকেলে ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত জানান, সিসিটিভি ফুটেজ দেখে জড়িতদের ধরা হয়। এ ঘটনায় সরাসরি জড়িত আবু বক্কর এবং নাহিদ। আর তাদের এ ঘটনা জানতেন দুই শিক্ষক আলামিন এবং ইউসুফ।

এদিকে উগ্রবাদী ধর্মান্ধ গোষ্ঠীর হামলায় কুষ্টিয়ায় ভেঙে ফেলা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যটি পুনর্নির্মাণের কাজ শুরু হয়। সোমবার সকালে পৌরসভায় পাঁচ রাস্তার মোড়ে ভাস্কর্যের ক্ষতিগ্রস্ত অংশ পুনরায় স্থাপনে কাজ শুরু হয়। অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান সাধারণ মানুষ। পৌরসভা কর্তৃপক্ষের তদারকিতে চলছে এ সংস্কার কাজ।

একই সময়ে পৌরসভা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর অপর দুটি ভাস্কর্য নির্মাণের কাজও চলছে পুরোদমে। এরপর শুরু হবে জাতীয় চার নেতার ভাস্কর্য তৈরির কাজ। কাজ শেষ হলে এগুলোও পাঁচ রাস্তা মোড়ে স্থাপন করা হবে। ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যেই পুরো ভাস্কর্য প্রস্তুত হবে বলে জানান পৌর মেয়র।

এদিকে ভাস্কর্য সংস্কারের কাজ শুরু হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন সাধারণ মানুষ। একই সঙ্গে ভাঙচুরের ঘটনায় দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। পুলিশ বলছে, ঘটনার নির্দেশদাতাদের খুঁজে বের করতে কাজ চলছে।

কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মাথায় গত ১৩ নভেম্বর বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় ৪ নেতার ভাস্কর্য নির্মাণের কাজ শুরু করে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। গত শুক্রবার গভীর রাতে দুই যুবক গিয়ে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ভেঙে দেয় ডানহাত ও মুখাবয়ব। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে জড়িত দুই মাদ্রাসাশিক্ষার্থীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়।