ধর্ষণের প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল জাতীয় প্রেসক্লাব-শাহবাগ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সারাদেশে নারী ও শিশু ধর্ষণ-নির্যাতনের মতো জঘন্যতম সব কার্যকালাপের সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত বিচার ও সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন, সমাবেশ, বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বর। এদিকে একই দাবিতে শাহবাগে মহাসমাবেশ চলছে। এতে অংশ নিয়েছে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনগুলো। এছাড়াও সাধারণ মানুষ এসব কর্মসূচীতে অংশ নিয়েছেন।

শুক্রবার সকাল থেকেই বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে জনসমাগম ঘটতে থাকে। সকাল ১০টার দিকে প্রতিবাদে মুখর হয়ে ওঠে প্রেসক্লাব চত্বর। বিভিন্ন সংগঠনের প্রায় হাজারখানেক মানুষ সকাল থেকে বিক্ষোভ, প্রতিবাদ করছেন।

সম্প্রতি দেশে ধর্ষণ, যৌন হয়রানির প্রবণতা বৃদ্ধির প্রতিবাদে সামাজিক প্রতিরোধের দাবিতে নাগরিক ঐক্য, ফিউচার অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ কনফেডারেশন অব লেবার (বিসিএল), জাতীয়তাবাদী মহিলা দল, জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দল, বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টি, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট, ঢাকাস্থ নোয়াখালী বেগমগঞ্জ ঐক্য পরিষদ, খেলাফত মজলিস, অলিন্দের সদস্য এই বিক্ষোভ, প্রতিবাদ সমাবেশ করছে।

আন্দোলনকারীরা বিভিন্ন ধরনের ব্যানার হাতে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তাদের ব্যানারে লেখা ছিল– ‘আমার বোন আজ ধর্ষিতা মানুষ তুমি চুপ কেন?’, ‘ধর্ষকদের বিচারের জন্য আলাদা ট্রাইব্যুনাল গঠন কর’, ‘ধর্ষণকারীর ফাঁসি চাই’, ‘বঙ্গবন্ধুর এই বাংলায় ধর্ষকদের ঠাঁই নাই’, ‘চলো যাই যুদ্ধে ধর্ষণের বিরুদ্ধে’, ধর্ষণকারীদের প্রকাশ্য ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে’, ‘স্টপ রেপ নাউ’, ‘ধর্ষণের একমাত্র শাস্তি প্রকাশ্যে ফাঁসি’, ‘ঘরে বাহিরে নারীরা থাকুক নিরাপদে’, ‘স্টপ রেপ’ এবং ‘হোক প্রতিবাদ হোক প্রতিরোধ সর্বত্র/ধর্ষণের বিরুদ্ধে আমরা ঐক্যবদ্ধ’।

এদিকে শাহবাগে সারা দেশে সংঘটিত ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নের প্রতিবাদ এবং ধর্ষণ ও নারী নিপীড়ন বন্ধে সরকারের বিরুদ্ধে ‘নিষ্ক্রিয়তার’ অভিযোগ এনে এই মহাসমাবেশ ডেকেছে বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর প্ল্যাটফর্ম ‘ধর্ষণের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ’। দেশে অব্যাহত ধর্ষণ ও বিচারহীনতার প্রতিবাদে ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অপসারণের দাবিতে এই মহাসমাবেশ ডাকে তারা।

মহাসমাবেশের শুরুতেই ধর্ষণবিরোধী মিছিল, বক্তব্য, গান, কবিতা ও স্লোগানে মুখর হয়ে ওঠে শাহবাগ।

এতে ঢাকার বাইরের বিভিন্ন জেলা থেকেও অনেকে এসে যোগ দিয়েছেন। এ সময় তাদের নানা স্লোগান সংবলিত প্লেকার্ড হাতে নিয়ে সমাবেশে আসতে দেখা গেছে।

সম্প্রতি সিলেটের এমসি কলেজ, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ধর্ষণের ঘটনায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে সর্বত্রয়। শিক্ষার্থী, সাধারণ জনগণ, দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন এর বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও চলছে তীব্র প্রতিবাদ। ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার তীব্র দাবি উঠেছে সাধারণ জনগণের পক্ষ থেকে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ, বিরোধী দল বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকেও জনগণের এই দাবির পক্ষে সমর্থন জানানো হয়েছে।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সমাবেশে বক্তারা বলেন, সরকারের মন্ত্রীরা বলেন, ‘আমেরিকা-ইউরোপ থেকে বাংলাদেশে নারীরা নির্যাতন কম হয়’। ধর্ষণের ঘটনায় মন্ত্রীরা এই ধরনের কথা বলেন। তাহলে আমরা কোন দেশে বাস করছি? তিন বছরের কন্যাশিশু থেকে ৭০ বছরের বৃদ্ধা ধর্ষণকারীদের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না। এরকম একটি ভয়াবহ পরিস্থিতি বিরাজ করছে দেশে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কারণে এখন মানুষ বেশি এসব ঘটনা সম্পর্কে জানতে পারছে। দেশে শতকরা ৮০টি ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ পায় না। বাকি ২০টি ধর্ষণের মধ্যে আদালতে মামলা পর্যন্ত গড়ায় ১০টি। তার মধ্যে শতকরা ৫টি ক্ষেত্রে ধর্ষকের শাস্তি হয়।

এ সময় তারা নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে শ্লীলতাহানি, ধর্ষণচেষ্টা ও নির্যাতন, সিলেটের এমসি কলেজে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণ, লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে বিধবা নারীকে ধর্ষণ, ভোলার চরফ্যাশনে গৃহবধূকে ধর্ষণ, গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, কুষ্টিয়ার মিরপুরে মাদরাসার শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ, রাজশাহীর গির্জায় ধর্ষণ, কিশোরগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণ, বরিশালের বাকেরগঞ্জে শিশুধর্ষণ, আশুলিয়ায় দুই কিশোরীকে ধর্ষণ, রাজধানীর খিলগাঁওয়ে চার শিশুকে যৌন হয়রানি, খাগড়াছড়ি ও সাভারে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে নারীর প্রতি সসিংসতা বন্ধে এবং এসব ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানান।

একই সময়ে মানববন্ধন, সমাবেশ, বিক্ষোভ যারা করেছে, তাদের মধ্যে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূ ধর্ষণের প্রতিবাদ, ধর্ষণকারী গ্রেপ্তার হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ধনবাদ ও দোষীকে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে ঢাকার নোয়াখালী বেগমগঞ্জ ঐক্য পরিষদ।

সারাদেশে অব্যাহত নারী ধর্ষণের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দল কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি। নারী নির্যাতন, ধর্ষণ, খুন ও নানাবিধ অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও প্রশাসনের যথাযথ দায়িত্ব পালন এবং সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে মানব কল্যাণমূলক সংগঠন ‘ব্লাজা’। ধর্ষণ, হত্যা, নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরী।