বাংলাদেশ প্রতিবেদক: শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় জাতি স্মরণ করল তার শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। রায়েরবাজার ও মিরপুর বধ্যভূমিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন সাধারণ মানুষ। এ সময় তারা বুদ্ধিজীবীদের শপথে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

কুয়াশাচ্ছন্ন শীতের সকাল। পায়ে পায়ে সবার গন্তব্য বধ্যভূমি। এখানেই যে বাঙালির সেরা সন্তানদের হত্যা করে ফেলে রেখেছিল পাকিস্তান বাহিনী, চালিয়েছিল পৃথিবীর নৃশংস এক গণহত্যা। সেই ঘটনার ৫০ বছরে শ্রদ্ধা অবনত সাধারণ মানুষ।

স্বাধীনতা প্রতিনয়ত জীবনে এনে দেয় ফাল্গুন হাওয়া, তাই ভুলে যাওয়া কি যায়? তাইতো গৌরবে, শোকে, স্মরণের জানালায় দাঁড়িয়ে যায় মানুষ।

বুদ্ধীজীবীদের স্মরণে ফুল দিতে আসা সাধারণ মানুষ জানান, পাক বাহিনীর পরাজয় জেনে দেশের সূর্যসন্তানদের জীবন কেড়ে নিয়েছেন; তাদরেকে শ্রদ্ধা জানাতে আজ এখানে এসেছি।

বুদ্ধিজীবী হত্যা বাস্তবায়ন করেছিলেন যারা, বিচারে তাদের ফাঁসির রায় হলেও, কার্যকর করা যায়নি। সাধারণ মানুষের দাবি, এ ব্যাপারে সরকার আরও সাহসী ভূমিকা নেবেন তরুণ প্রজন্মের যারা, তারাও ভুলছে না গৌরবের ইতিহাস, তাই নিজেদের জায়গায় থেকেই চালিয়ে যাচ্ছেন নানা কর্মযজ্ঞ।

এদিকে বুদ্ধিজীবী সন্তানরা জানান, যারা এই হত্যাকাণ্ডের খলনায়ক ছিলেন তাদের সবাইকে বিচারের আওতায় নিয়ে আসা হয়নি। প্রত্যেককে বিচারের আওতায় নিয়ে আসা হোক।