মরহুম শিল্পপতি জহুরুল ইসলাম

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: উন্নত সমাজের কারিগর মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সফল ব্যবসায়ী, সমাজসেবী, সৃজনশীল শিল্পোদ্যোক্তা, দানবীর ও ইসলাম গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শিল্পপতি জহুরুল ইসলামের ২৬তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৯৫ সালে ৬৭ বছর বয়সে সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন তিনি। ব্যক্তিত্বে, মানবতায়, ব্যবসায় এবং সমাজসেবায় তিনি ছিলেন অনন্য।

মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি সর্বজনবিদিত। মুক্তিযুদ্ধের সময় লন্ডন থেকে সুবিদ আলী ছদ্মনামে স্বাধীনতাকামীদের জন্য তিনি অর্থ পাঠাতেন। ১৯৭৪ সালে দুর্ভিক্ষের সময়ও কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন অঞ্চলে তিনি অনেক লঙ্গরখানা খুলেছিলেন।

সাধারণ থেকে কীভাবে অসাধারণ হয়ে ওঠা যায় অথবা সৃষ্টিকর্তা কাউকে কর্মজীবনে সাফল্য দিলে সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রতি তার দায়িত্ব-কর্তব্য কী হওয়া উচিত, তার একটি চমৎকার দৃষ্টান্ত খুঁজে পাওয়া যায় এ মানুষটির জীবন থেকে। দীর্ঘ জীবন পাননি তিনি। মাত্র ৬৭ বছর বয়সে চলে গেছেন না-ফেরার দেশে।

অপরিণত বয়সে তার এ চলে যাওয়ায় শুধু কি ক্ষতি তার পরিবারের? না, সবচেয়ে বড় সত্য হল, এ ক্ষতি গোটা সমাজের ও দেশের। তাই তো তার চলে যাওয়াকে স্বাভাবিক বলে মেনে নিতে পারি না। এ স্বল্প সময়ের জীবনে কত অসাধ্য সাধন তিনি করেছেন, তার ফিরিস্তি দিতে গেলে প্রবন্ধটি হবে নাতিদীর্ঘ।

সারা বিশ্ব এখন মহাবিপর্যয়ে। করোনা মহামারীতে ক্ষতবিক্ষত ও বিধ্বস্ত। এগারো লাখেরও বেশি মানুষ এ মরণব্যাধিতে এরই মধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন। কোটি কোটি মানুষ হারিয়েছেন কর্ম, মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন কত মানুষ তার সঠিক পরিসংখ্যান বোধকরি কারও জানা নেই। এ কঠিন দুঃসময়ে সারা পৃথিবীর মতো আমাদের প্রিয় স্বদেশভূমির প্রতিটি মানুষও অসহনীয় অবস্থার মুখোমুখি।

বিশ্বের শক্তিধর ও সম্পদশালী দেশগুলোও যখন হিমশিম খাচ্ছে, তখন আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশের অবস্থা কী হতে পারে, সেটি ব্যাখ্যা করে বলার অবকাশ নেই। সীমিত সম্পদ সত্ত্বেও দেশের সরকার দেশবাসীর পাশে দাঁড়ানোর প্রয়াস নিয়েছে। কোভিড আক্রান্তদের চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে কত চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী প্রাণ হারিয়েছেন আমরা সবাই তা জানি। এ প্রসঙ্গে একটি কথা উল্লেখ করতে চাই।

করোনার ভয়াবহ থাবায় যখন দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা ভেঙে পড়ার উপক্রম, চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা যখন সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে, রাজধানীসহ দেশের বড় বড় শহরে নানা অসুখ-বিসুখে আক্রান্ত মানুষ যখন ন্যূনতম চিকিৎসাসেবা পেতে দিগ্বিদিক ছুটে বেরিয়েছেন, তখন প্রয়াত জহুরুল ইসলামের অন্যতম সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শতভাগ নিষ্ঠা ও মমতা দিয়ে সব ধরনের রোগীদের চিকিৎসাসেবা অব্যাহত রেখেছে।

করোনার ভয়াবহ আগ্রাসনের এ সময়ে এ হাসপাতালে রোগীর চাপ অন্য যে কোনো সময় থেকে বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যায়; কিন্তু প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী ও কর্মচারীরা রোগীদের প্রতি তাদের দায়িত্ব পালনে সামান্যতম শৈথিল্য দেখিয়েছেন বলে শোনা যায়নি।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অতি সচেতন থেকে রোগীদের সেবাপ্রদানের বিষয়টি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে রেখেছে। চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীরা যে কোনো ধরনের রোগীদের সেবাপ্রদানের যে শপথ উচ্চারণ করে এ পেশায় যোগ দিয়েছেন সেই শপথ সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালনে সচেষ্ট রয়েছেন।

মাত্র ৬৭ বছর বয়সের জীবনে জহুরুল ইসলাম গড়ে তুলেছিলেন নানা ধরনের শিল্প-কারখানা। পাট থেকে পাটজাত দ্রব্য উৎপাদন করে বিদেশে রফতানি করেছেন। চিকিৎসাসেবার স্বার্থে গড়ে তুলেছেন ওষুধ শিল্প। গভীর নলকূপ বসিয়ে মাটির বুক চিরে পানি তুলে এনে ধরণীর মাটিকে সবুজে সবুজময় করে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করার কাজসহ কৃষিজাত পণ্য, পোলট্রি শিল্প- এসব কঠিন কাজ করে গেছেন তিনি।

দেশের প্রথম আবাস তৈরির নিখুঁত কারিগর ছিলেন তিনি। হাউজিং ব্যবসার পথিকৃৎ বলা হয় তাকে। হাজার হাজার মানুষ এসব প্রতিষ্ঠানে তাদের শ্রম ও মেধার ব্যবহার ঘটিয়ে সৃষ্টি করেছেন নতুন নতুন ইতিহাস।

জহুরুল ইসলাম ছিলেন শিল্প ও কৃষিবিপ্লবের সেনাপতি। নানাবিধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার পাশাপাশি তার প্রিয় জন্মভূমি কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার ভাগলপুর গ্রামে গড়ে তুলেছেন একটি অত্যাধুনিক হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ। দেশি-বিদেশি অসংখ্য শিক্ষার্থী এ প্রতিষ্ঠান থেকে স্নাতক হয়ে মানবসেবায় নিয়োজিত করেছেন নিজেদের। বেসরকারি পর্যায়ে স্থাপিত চিকিৎসা, শিক্ষা ও সেবা প্রতিষ্ঠানের তালিকার প্রথম কাতারে এটি স্থান দখল করে আছে প্রতিষ্ঠার পর থেকেই।

প্রায় তিন দশক অতিক্রম করছে এ প্রতিষ্ঠান। দেশবাসী, বিশেষ করে তার জন্মভূমির মানুষ মনেপ্রাণে বিশ্বাস করে- মরহুম জহুরুল ইসলামের সব সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ হচ্ছে এ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল।

এ প্রতিষ্ঠানের আয় থেকে কখনও তার পরিবার অর্থ নেন না, ঘাটতি হলে অন্য প্রতিষ্ঠানের আয় থেকে জোগান দেন। মানবতার সেবায় তার এ অসামান্য অবদান তাকে বাঁচিয়ে রাখবে অনির্দিষ্ট কাল। দায়িত্ববোধ, স্বদেশের দীর্ঘ মুক্তিসংগ্রাম এবং সর্বোপরি একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। কথা ও কাজের মাধ্যমে বারবার প্রমাণ করেছেন, তিনি এ মাটির একজন অপরাজেয় কারিগর।

মানসম্পন্ন ওষুধ তৈরি করার লক্ষ্যে ‘নাভানা ফার্মাসিউটিক্যালস লিঃ’ নামে একটি আধুনিক ওষুধ কোম্পানি স্থাপন করেন। এছাড়াও তিনি অসংখ্য স্কুল-কলেজ, মসজিদ-মাদ্রাসা, এতিমখানা নির্মাণ করেছেন এবং শত শত প্রতিষ্ঠানে অনুদান দিয়েছেন। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের চাবিকাঠী বেসরকারি খাতে ব্যাংক প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও তিনি রেখে গেছেন বিশাল অবদান। আন্তর্জাতিক বাজারে জনশক্তি রপ্তানির অগ্রদূত হলেন তিনি। সত্তর দশকের শেষের দিকে মধ্যপ্রাচ্যে ৫ হাজার বাড়ি এবং সড়ক নির্মাণ কাজে তিনি বাংলাদেশি শ্রমিকদের কাজে লাগিয়েছেন। এর ফলেই সেখানে বাংলাদেশিদের কদর বেড়েছে। তারপর থেকে শুরু হয়ে যায় মধ্যপ্রাচ্যে বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগ।

ভাষা আন্দোলন ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে জহুরুল ইসলামের অবদান এদেশের ইতিহাসেরই একটি অংশ। তিনি ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের সময় পাকিস্তান সরকারের জেলে আটক বাঙালি নেতাকর্মীদের মামলা, আহতদের চিকিৎসা ও পারিবারিক খরচ নিভৃতে বহন করেছেন। ঐতিহাসিক আগরতলা মামলার খরচও তিনি ব্যক্তিগতভাবে বহন করেছেন। তিনি ১৯৭১ সালে ৩ এপ্রিল পাক বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হন এবং মুক্তি পাওয়ার পর ১০ জুন লন্ডনে চলে যান এবং সেখানে ‘সুবেদ আলী’ ছদ্মনাম ধারণ করে লন্ডনে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে কার্যক্রম পরিচালনার সিংহভাগ অর্থই তিনি প্রদান করেন। দেশের অভ্যন্তরেও বিভিন্নভাবে গোপনে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের নেতৃবৃন্দের কাছে অর্থ পৌঁছে দেন। এমনিভাবে তিনি সকল রাজনৈতিক অভিলাষ ও ব্যক্তিগত স্বার্থের ঊর্ধেŸ থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন এবং স্বাধীনতা যুদ্ধে নিভৃতে নিজেকে সম্পৃক্ত করে নিঃস্বার্থ দেশ প্রেমিকের ভূমিকা পালন করেন। স্বাধীনতার পরেও দেশের অগ্রযাত্রা, দেশ গঠন ও সমৃদ্ধকরণে জহুরুল ইসলামের অবদান বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। প্রকৃতপক্ষে তিনি ছিলেন এক প্রচারবিমুখ মানুষ। তার যা প্রচার প্রচারণা পুরোটা হয়েছে লোক মুখে। অগাধ সম্পদের অধিকারী হওয়া সত্ত্বেও তিনি ছিলেন মিতব্যয়ী, নিরহংকারী বিনয়ী ও সদালাপী। শৈশব থেকেই তিনি ছিলেন অতিশয় ধর্মপরায়ন। তিনি কোন দিন নামাজ কাজা করেননি। প্রতিবছর সঠিকভাবে জাকাত প্রদান করেছেন।

একাধিকবার হজ পালন করেছেন এবং অসংখ্যবার ওমরাহ করেছেন। তিনি ছিলেন একজন নিষ্কলঙ্ক চরিত্রের অধিকারী। মাতৃভক্তি এবং বয়োজ্যেষ্ঠদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ ছিল অত্যন্ত প্রবল। নিজ কর্মচারীদের প্রতিও ছিলেন অতীব যতœবান। অসহায়, অসুস্থ ও বিপদগ্রস্ত মানুষকে গোপনে সাহায্য-সহযোগিতার মাধ্যমে তিনি খুঁজে পেতেন আত্মতৃপ্তি। অনেক গরিব ছেলেমেয়েদের পড়াশুনার খরচ বহন করেছেন ও নিজের প্রতিষ্ঠানে চাকরির ব্যবস্থা করেছেন। অনেক কন্যাদায়গ্রস্ত বাবাকে আর্থিক সহায়তার পাশাপাশি অনেক কন্যার বরকে নিজ প্রতিষ্ঠানে চাকরি দিয়েছেন। তাছাড়াও সারাদেশের বিভিন্ন এলাকায় তার পরিচিত কিছু অসহায়, গরিব পরিবারের একটি তালিকা ছিল তার কাছে। তাদেরকে তিনি প্রতি মাসে মাসে মানি অর্ডার করে টাকা পাঠাতেন। বহু দীনহীন লোকের ঘরবাড়ি তৈরি করে দিয়েছেন এবং চিকিৎসার খরচও বহন করেছেন। নিজ এলাকার বহু রাস্তাঘাট, সেতু, বাসস্টান্ড এবং রেল স্টেশন নির্মাণ করেছেন। তিনি মানুষকে আপ্যায়ন করতে খুবই পছন্দ করতেন। এদেশে ১৯৭৪ সালের দুর্ভিক্ষে তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকায় নিজ অর্থে দুই শতাধিক লঙ্গরখানা খুলে পাঁচ মাসব্যাপী খাদ্য বিতরণ করেছেন। বাঙালি সংস্কৃতির বিকাশ, অগ্রযাত্রা ও সৃজনশীল কাজেও তিনি সহযোগিতা করেছেন উদারভাবে।

জহুরুল ইসলামের জীবনাদর্শ ও জীবনদর্শন অবশ্যই দিক-নির্দেশনা হতে পারে লক্ষ্যহীন অসংখ্য মানুষের। এ জীবন দিতে পারে নতুন প্রেরণা। উপস্থাপিত করতে পারে অসম্ভবকে সম্ভব করার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত এবং মহিমায় উদার, মানবতাবোধ, দেশপ্রেম ও সমাজ কল্যাণের উৎকৃষ্ট উদাহরণ। তার দেশপ্রেম ও মানবপ্রেম বর্তমান এবং আগামী প্রজন্মের জন্য পাথেয় হয়ে থাকবে।

Previous articleশাহবাগ মোড় অবরোধ, তীব্র যানজট: বিচারের দাবিতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম
Next articleসিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে গ্রামবাসীর সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত ৩০
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।