বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গত ৪ নভেম্বর থেকে দেশে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়ে ৬৫ থেকে ৮০ টাকা করা হয়েছে। এই মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব আনিছুর রহমান। তিনি বলেছেন, ‘এই সিদ্ধান্ত রাজনৈতিক, আমলাদের নয়।’

বৃহস্পতিবার জ্বালানিবিষয়ক সাংবাদিকদের সংগঠন ফোরাম ফর এনার্জি রিপোর্টার্স বাংলাদেশ (এফইআরবি) আয়োজিত ‘জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি: ভবিষ্যৎ প্রভাব’ শিরোনামে এক অনলাইন সেমিনারে সচিব এই বিস্ফোরক মন্তব্য করেন।

ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ানো প্রসঙ্গে জ্বালানি সচিব বলেন, আমলারা এত বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। ৬ মাস অপেক্ষা করে দাম সমন্বয় করা হয়েছে।

সরকার বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসির) উদ্বৃত্ত আয়ের ১০ হাজার কোটি টাকা গত দুই বছরে নিয়ে গেছে জানিয়ে জ্বালানি সচিব বলেন, এই উদ্বৃত্ত আয় সরকার না নিলে আরও ৬ মাস দাম বাড়ানোর বিষয়ে অপেক্ষা করা যেত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এই জ্যেষ্ঠ আমলা আরও বলেন, অর্থনীতিতে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব অস্বীকার করার সুযোগ নেই। কিন্তু বিপিসির হাতে অর্থ ছিল না। আমদানি বন্ধ হয়ে গেলে আরও ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। সরবরাহ ঠিক রাখতে হলে দাম কমানো যায় না। বিশ্ববাজারে দাম কমার সঙ্গে সঙ্গে দেশে সমন্বয় করা হবে।

তবে তেলের দাম কমানোর পর পরিবহণ ভাড়া কমবে কিনা, সেই নিশ্চয়তা জ্বালানি বিভাগ দিতে পারবে না সাফ জানিয়ে দেন জ্বালানি সচিব। তিনি আরও জানান, পেট্রল ও অকটেনের আপাতত দাম বাড়ানোর কোনো চিন্তা নেই।

সচিবের মন্তব্যের পর বিপিসির চেয়ারম্যান এবিএম আজাদও বললেন একই কথা। তিনি বলেন, জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত সরকারের। বিপিসি এটি বাস্তবায়ন করেছে।

Previous articleদেশের সব মাদরাসা বন্ধ করা হোক: হিমন্ত
Next articleযে ঘুষ নেয় এবং যে দেয় উভয়ই সমান অপরাধী: অর্থমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।