সদরুল আইন: যারা ভেবেছিল ইকবাল হোসেন সবুজ এমপি হলে রাজনৈতিক পালাবদল ঘটলে ব্যবসায়িক সুবিধা পাবে, লুটেপুটে খাওয়ার সুযোগ আসবে, নিজেদের আধিপত্ত প্রতিষ্ঠা করে সবুজকে দ্বিতীয় দুর্জয়ে পরিনত করবে, তাদের বাড়া ভাতে ছাই পড়েছে।

ক্রমশ হতাশ হয়ে পড়ে নিষ্ক্রিয় হতে দেখা যাচ্ছে সেই সব নেতাদের যারা আখের গোছানোর অভিপ্রায় নিয়ে সবুজ রঙ ধারন করার চেষ্টা করেছিল।

গাজীপুর -৩ আসনের পচনশীল রাজনীতিতে এখনো শুদ্ধি অভিযান শুরু করেননি সদ্য শপথ নেওয়া নব নির্বাচিত সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজ।

তবে অচিরেই শুদ্ধি অভিযান শুরু হবে বলে জানা গেছে।সেই অভিযানে নেশাখোর ইয়াবা ব্যবসায়ি, দখলবাজ খুঁটা বাহিনী ভূমি দস্যূ আর ফ্যাক্টরী দখলবাজদের কাল্পনিক স্বপ্ন যে বিবর্ণ হবে তা বলাই বাহুল্য।

সততার নির্মোহ বৃন্তে ফোটা এক অনন্য সুরভিত গোলাপ হল ইকবাল হোসেন সবুজ ও তার রাজনীতি।সবুজকে সম্ভবত এখনো চিনতে পারেননি তার নির্বাচনী এলাকার দখলবাজ স্বপ্নচারি মানুষগুলো।

সবুজ এমন এক ধাতুতে তৈরি যে ধাতুটি কোন লোভ লালসার আগুনে গলে না। সত্য সুন্দর ন্যায় নীতির যুবকাষ্ঠেই কেবল বলী হতে পারে সবুজ।

কোন প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে সবুজকে কিনে নেওয়া যায় না।তাকে কিনতে হলে বুকের জমিনে ভালবাসার গোলাপ চাষ করতে জানতে হয়।

অন্যায় সমরে নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে শ্রীপুরের অগনিত মানুষের কাছে একটি পরিবর্তনের আকাঙ্খার হত্যাকারি কখনোই হবেন না ইকবাল হোসেন সবুজ।

সবুজের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়ে এতদিন যারা ভেবেছিলেন সবুজ এমপি হলে মিল ফ্যাক্টরি থানা প্রশাসন লুটেপুটে খেতে পারবে, তারা আজ হতাশই নয় আগামি দিনের বেকারত্ব নিয়ে শঙ্কিতও বটে।

ষড়যন্ত্রের অসংখ্য সাহারা পার হয়ে আসা নেতা সবুজকে যে কোন প্রলোভন দেখিয়ে ফায়দা লুটা যায় না তারা একটু দেরিতে হলেও তা বুঝতে পারছে।

নিয়ম নীতি আইনের বাইরে সবুজের কাছ থেকে কোন বাড়তি সুবিধা পাওয়ার কোন সুযোগ নেই, এই সত্যটা ক্রমশ: দৃশ্যমান হচ্ছে।ফ্যাক্টরি খাওয়ার স্বপ্নগুলো আস্তে আস্তে ফিকে হয়ে আসছে।

তবে ইকবাল হোসেন সবুজের সৎ রাজনীতির মধ্যে ঢুকে পড়া দু’নৌকায় পা রেখে চলা কতিপয় শীর্ষ নেতাদের বিতর্কিত কর্মকান্ড জনগনকে ভাবিয়ে তুলছে।

সাবেক এমপিপুত্র দুর্জয়ের ক্যাডারদের নিয়ে কতিপয় সবুজের কথিত শীর্ষ অনুসারিদের তৎপরতা মানুষের মধ্যে বিরাট প্রশ্নবোধক চিহৃ হয়ে দেখা দিচ্ছে।

যে কারনে শ্রীপুরের অগনিত মানুষ মনে করছে, মানবিক আধুনিক উপশহর গড়তে হলে প্রথমেই সবুজের রাজনীতিতে শুদ্ধি অভিযান প্রয়োজন।

সৎ নেতৃত্বকে লাইম লাইটে এনে নেতৃত্বের পরিবর্তন ঘটাতে পারলেই কেবল এই আসনের রাজনীতিতে পরিবর্তন আসবে।ইকবাল হোসেন সবুজ স্পর্শ করতে পারবেন সোনালী স্বপ্নের মাহেন্দ্রক্ষণ।

শুদ্ধি অভিযান ছাড়া তার কোন পরিকল্পনায় বাস্তবের সোনালী সৈকত স্পর্শ করতে পারবে না তা অনেকটাই নিশ্চিত।তাই মানবিক উপশহর গড়া ও সৎ রাজনীতিকে প্রতিষ্ঠা করতে প্রথমেই অসৎ ক্ষমতালোভীদের বিদায় এবং সৎ নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করা জরুরি বলে মনে করছেন এই আসনের সাধারন মানুষ।