আরিফুর রহমান: মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাট থেকে ফেরিতে গাদাগাদি করে বাংলাবাজার আসার সময় পদদলিত হয়ে মারা যাওয়া পাঁচজনের মধ্যে অজ্ঞাত দুইজনের পরিচয় মিলেছে। বৃহস্পতিবার (১৩ মে) সকালে নৌপুলিশ তাদের পরিচয় নিশ্চিত করে।

তারা হলেন- পিরোজপুরের নেছারাবাদ উপজেলার আরামকাঠি এলাকার আবদুল জব্বারের ছেলে শরিফুল ইসলাম (২৭) ও গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার পদ্মবিলা এলাকার মজিবর রহমানের স্ত্রী শিল্পী বেগম (৪০)। শরিফুল ইসলাম সাভারের একটি কাঠের ফার্নিচারের দোকানে কাজ করতেন। আর শিল্পী বেগম ঢাকার একটি পোশাক কারখানার শ্রমিক ছিলেন। দুজনই ঈদ করতে গ্রামের বাড়িতে ফিরছিলেন।

এর আগে বুধবার (১২ মে) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে আসা শাহপরাণ ফেরিতে পায়ের চাপায় মারা যায় আনছার মাদবর (১২)। একই দিন দুপুর ১টার দিকে শিমুলিয়া থেকে প্রায় তিন হাজার যাত্রী নিয়ে বাংলাবাজার ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসে ফেরি এনায়েতপুরী। অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে ওই ফেরিতে গাদাগাদি অবস্থার সৃষ্টি হয়। ফেরি থেকে নামতে গিয়ে যাত্রীদের চাপে ও পদদলিত হয়ে মারা যান চারজন।

এদের মধ্যে মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার আলামিন ব্যাপারীর স্ত্রী নিপা বেগম (৪৫) ও বরিশালের মুলাদি উপজেলার চরকালিখান এলাকার এছহাক আকনের ছেলে নরুদ্দিন আকনের (৪৬) পরিচয় পাওয়া যায়।

চরজানাজাত নৌপুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক আবদুর রাজ্জাক বলেন, সকালে আমরা অজ্ঞাত নারী ও পুরুষের পরিচয় নিশ্চিত হয়েছি। নিহতদের স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে। নিহত ওই দুজনই ঢাকা থেকে ঈদ করতে গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন।

Previous articleকেশবপুরে আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু
Next articleঈদ উপলক্ষ্যে বর্ণিল সাজে সেজেছে ঈশ্বরদীর স্বপ্নদ্বীপ রিসোর্ট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।