অতুল পাল: রাজনৈতিক এবং নির্বাচনী প্রতিহিংসার কারণে বাউফলের কেশবপুর ইউনিয়নের প্রায় দের হাজার জেলেদের চাউল ৩০ কিলোমিটার দুরে কালাইয়া ইউনিয়নের খাদ্যগুদাম থেকে বিতরণ করা হচ্ছে। চাউল নিতে এসে চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয়েছে জেলেদের। এছাড়া চাউল নিতে এসে প্রতি জেলের খরচ হয়েছে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা।

এনিয়ে জেলেদের মধ্যে চরম অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কেশবপুর ইউনিয়নে ১ হাজার ৪৩০ জন জেলে রয়েছে। এপ্রিল এবং মে মাসের বরাদ্দ হিসেবে প্রতি জেলে ৮০ কেজি চাউল পাবেন। ৮ ও ৯ জুন কালাইয়া খাদ্যগুদাম থেকে ওই চাউল বিতরণ করা হয়। ইতিপূর্বে কেশবপুরে ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে বসে জেলেদের চাউল বিতরণ করতে গিয়ে উভয় চেয়ারম্যান প্রার্থীদের পক্ষ থেকে নানা অভিযোগ এলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ চাউল বিতরণ বন্ধ রাখেন এবং পরে নিরাপত্তা জোরদার করে চাউল বিতরণ করেন। উপজেলা প্রশাসন এবং সংশ্লিষ্ট ট্যাগ অফিসার চাউল বিতরণে কোন ধরণের ঝামেলা যাতে না হয় এ কারণে কেশবপুরের পরিবর্তে ৩০ কিলোমিটার দুরে কালাইয়া খাদ্যগুদাম থেকে চাউল বিতরণের সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু ওই সিদ্ধান্তে চরম বিপাকে পড়তে হয়েছে জেলেদের। একটি সূত্র জানায়, কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সালেহ উদ্দিন পিকু আসন্ন ২১ জুন অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী। অপরদিকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বরখাস্তকৃত সাধারন সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন লাভু স্বতন্ত্র প্রার্থী। প্রতিদ্বন্দ্বী ওই দুই প্রার্থীই মনে করছেন, নির্বাচনের আগে যারাই চাউল বিতরণ করবেন তাদের পক্ষে সাধারন মানুষ ভোট দেবেন। এই মনোবৃত্তি মেম্বরগণের মধ্যে রয়েছে। মূলত: এই প্রতিহিংসার কারণেই কেশবপুরের জেলেরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। উল্লেখ্য, কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সালেহ উদ্দিন পিকুর দুই ভাই খুনের ঘটনায় বর্তমান চেয়ারম্যান প্রধান আসামি। চেয়ারম্যান আদালত থেকে জামিনে এসে স্বপদে বহাল থেকে কাজ করতে গেলে নানা জটিলতার সৃষ্টি হয়। জনস্বার্থে বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন মেটানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। চাউল নিতে আসা জেলেরা জানান, ঝড়-বৃষ্টি মাথায় নিয়ে তারা চাউল নিতে এসেছেন। খাদ্যগুদামের লেবার, যানবাহন খরচ এবং হোটেলে খাওয়াসহ প্রতিজন জেলের প্রায় ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা ব্যয় হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ট্যাগ অফিসার উপজেলা একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের সমন্বয়কারী আরিফুল ইসলাম জানান, কালাইয়া গোডাউন থেকে কেশবপুর পর্যন্ত চাউল পরিবহনে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা দরকার। সরকার যে পরিমাণ টাকা দিতো বাকি টাকা চেয়ারম্যান বহন করতেন। কিন্তু রাজনৈতিক এবং নির্বাচনী কারণে চেয়ারম্যান সেই দায়িত্ব নিচ্ছেন না এবং চাউল বিতরণকালেও থাকতে পারছেন না। ফলে জেলেরা স্ব স্ব উদ্যোগে কালাইয়া খাদ্যগুদাম থেকেই চাউল নিচ্ছেন। বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন জানান, সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান এবং মেম্বরদের চাউল বিতরণ করার কথা। কিন্তু তাদেরকে চাউল নেয়ার জন্য একাধিকবার বলা হয়েছে এবং সর্বোপরি কারণদর্শানোর চিঠিও দেয়া হয়েছে। কারণদর্শানোর উত্তরে তারা বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে কালাইয়া খাদ্যগুদাম থেকে চাউল পরিবহন করে নিতে অপারগতা প্রকাশ করনে। অপরদিকে চাউল বিতরণ করা না গেলে জুনের পর চাউল সমর্পণ করে দিতে হবে। বাধ্য হয়ে আমরা উপজেলা পরিষদের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক জেলেদেরকে কালাইয়া খাদ্যগুদাম থেকে চাউল নেয়ার সিদ্ধান্ত দেই।

Previous articleসোনারগাঁওয়ে ভূয়া পরিবেশ কর্মকর্তা আটক
Next articleউল্লাপাড়ায় ঘাস কাটতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে গৃহবধূর মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।