শহিদুল ইসলাম: কথায় আছে ‘কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ’। শীতকাল ধনীদের কাছে অনেক সুখকর সময় মনে হলেও দুস্থ অসহায় ‍মানুষের কাছে সর্বনাশই।

কারণ, শীতকাল এলেই ধনী বা মধ্যবিত্তরা মধ্যে বাহারি ডিজাইন ও নানা রঙের শীতের পোশাক কেনার ধুম পড়ে যায়। আর যাদের সামান্য একটি শীতের পোশাক কেনার সামর্থ্য নেই, তাদের কাছে শীতকাল মানেই সর্বনাশ।

এমনটিই চিন্তা করে বরাবরের মতো এবারও এসব অসহায় ও দুস্থ মানুষের পাশে শীতবস্ত্র পৌঁছে দিচ্ছে আলআমিন ইসলামী সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি (টিভিডি)লিমিটেড।

এরই অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার(২০ জানুয়ারি) বিকেলে ঝিকরগাছা কুমরী বটতলা মোড়ে শতাধিক কম্বল বিতরণ করা হয়।

আল আমিন ইসলামী (টিভিডি) লিমিটেডের পক্ষ থেকে অসহায় দুস্থ মানুষের হাতে কম্বল বিতরণ করেন আল আমিন ইসলামী সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির ব্যাবস্হাপক মাও: ফারুক হোসেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন ইউপি সদস্য আসাদুল ইসলাম।

এ সময় আল আমিন ইসলামী সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেড বাগআঁচড়া শাখার ইনচার্জ মাও: হারুনর রশিদ, গোগা শাখার ইনচার্জ ফারুক হোসেন,বাঁকড়া ইউনিটের ইনচার্জ হাফেজ মফিজুল ইসলাম, আল আমিন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির ইনভেস্ট অফিসার আক্তারুজ্জামান,
সহ বেশ কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক উপস্থিত ছিলেন।

আল আমিন (টিভিডি)সমবায় সমিতি লিমিটেডের ব্যাবস্হাপক মাও: ওমর ফারুক বলেন, আল আমিন (টিভিডি)সমবায় সমিতি লিমিডেট সবসময় সকল শুভ কাজে থাকে। এই শীতে যারা কষ্ট পায় আল আমিন (টিভিডি)সমবায় সমিতি লিমিটেডের সহায়তায় এই কম্বল বিতরণ করছে। আপনারা এই টিভিডি সমবায় সমিতি লিমিটেডের জন্য দোয়া করবেন, তারা যেন আরো বেশি বেশি অসহায় গরীব মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারে।

তিনি আরো বলেন, আল আমিন ইসলামী (টিভিডি) সমবায় সমিতি লিমিটেড যেভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে এরকমভাবে অন্য বিত্তশালীরা যদি আরো বেশি করে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ায়, তাহলে এদেশের অসহায় মানুষরা আর শীতে কষ্ট পাবে না।

Previous articleমিঠাপুকুরে ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র বিদ্রোহীদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আহবান আওয়ামী লীগের
Next articleচট্টগ্রামে নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যা, একজনের ফাঁসি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।