মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলাকেশবপুরে শালিশে বানিজ্য!  প্রতিবন্ধির টাকা শালিশদারের  পকেটে, থানায় পৃথক ৩টি অভিযোগ

কেশবপুরে শালিশে বানিজ্য!  প্রতিবন্ধির টাকা শালিশদারের  পকেটে, থানায় পৃথক ৩টি অভিযোগ

জিএম মিন্টুঃ যশোরের কেশবপুরে স্থানীয় শালিশে চোর বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে।এঘটনায় চোর ও শালিশের বিরুদ্ধে থানায় পৃথক ৩টি অভিযোগ হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে,রাজ নগর বাঁকা বর্শী গ্রামের দক্ষীন পাড়ার মোস্ত সরদারের ছেলে জিহাদ ও তার সহযোগী একই গ্রামের জোবায়ের দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় চুরি,ডাকাতি,ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধমুলক কর্মকান্ড করে আসছিল। সাক্ষ্য প্রমানের অভাবে তারা পুলিশ ও এলাকাবাসীর ধরা-ছোঁয়ার বাইরে ছিল। গত ১৭-০৮-২৩ তারিখ দিন দুপুরে রাজ নগর বাঁকা বরশী গ্রামের জামসেদ মোড়লের বাড়ী থেকে বাইসাইকেল চুরি করার সময় জিহাদ ও জোবায়েরকে স্থানীয় লোকজন হাতে নাতে ধরে ফেলে।পরে উত্তম মাধ্যমের এক পর্যায়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সামনে তারা গত ২০-০৬-২৩ তারিখ রাজ নগর বাঁকা বর্শি গ্রামের মৃত মকছেদ মোড়লের ছেলে প্রতিবন্ধি মশিয়ার মোড়লের মোটরভ্যান চুরি,গত ০৮- ০৮-২৩ তারিখ একই এলাকার বজলু রহমান সরদারের ছেলে সবুজের বাড়ী থেকে বিদেশী জাতের মুরগী চুরি, গত ১৩-০৭-২৩ তারিখ নতুনহাট চেনিগোলা পুকুর পাড় খেকে বড় মাদারডাঙ্গা গ্রামের অনিল মন্ডলের ছেলে মদনের মটরভ্যান,একই গ্রামের পাগলা মাসুসের বাড়ী থেকে চাউল চরিসহ বিভিন্ন অপরাধমুলক কর্মকান্ডের কথা স্বীকার করে।এসময় স্থানীয় কতিপয় আওয়ামী নেতার মধ্যস্থতায় লক্ষাধিক টাকার চুক্তিতে ধৃত চোরেরা ছাড়া পায়। পরে ২২-০৮-২৩ তারিখ সন্ধারাতে
স্থানীয় মাঝের পাড়া মসজিদের সামনে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতেৃত্বে চুরির ঘটনায় এক শালিশী বৈঠক হয়।উভয়পক্ষের শুনানি শেষে চোরের বিরুদ্ধে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করে শালিশী মোড়লরা।চুরি যাওয়া ব্যক্তিদের অভিযোগ,শালিশে জরিমানা শুধুমাত্র লোক দেখানো শালিশের পূর্বেই চোরদের কাছ থেকে মাদবররা
প্রায় লক্ষাধিক টাকা বানিজ্য করেছে। শালিশী মাদবরদের নিকট থেকে টাকা না পেয়ে অবশেষে প্রতিবন্ধি ভ্যানচালক মশিয়ারের স্ত্রী রিজিয়া বেগম,সবুজ সরদার ও মদন মন্ডল বাদী হয়ে কেশবপুর থানায়
চোর ও শালিশী মাদবরদের বিরুদ্ধে পৃথক ৩টি অভিযোগ দায়ের করে।

রিজিয়া বেগম সাংবাদিকদের জানান,আমার স্বামীর ভ্যানের ৩৭ হাজার টাকাসহ  অন্যান্য চুরির জন্য শালিশী মোড়লরা চোরদের কাছ থেকে প্রায় ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা বানিজ্য করেছে। আমার প্রতিবন্ধি স্বামীও তাদের কাছ থেকে রক্ষা পাইনি। আমি শালিশী মোড়লদের কাছ থেকে টাকা আদায় করতে ব্যর্থ হয়ে অবশেষে বাধ্য
হয়ে তাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছি।

এব্যাপারে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি নিলুফার ইয়াসমিন ও সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান বাবু জানান, চুরির ঘটনায় স্থানীয়ভাবে শালিশ করা হয়েছিল।তবে লক্ষাধিক টাকা বানিজ্যের কথা সত্য নয়,সামান্য কিছু টাকা লেনদেন হয়েছে সে টাকা চুরি যাওয়া ব্যক্তিদের দেওয়া হয়েছে। এব্যাপারে অভিযোগ তদন্ত কর্মকর্তা কেশবপুর থানার এস আই তাপস জানান,সুষ্টভাবে তদন্ত চলছে,তদন্তে ঘটনা সত্য প্রমানিত হলে ব্যবস্থা গ্রহন করা
হবে।

 

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments